Milky Way


Mission Geography India:
আকাশগঙ্গা (Milky Way) একটি ছায়াপথ । সৌরজগতের কেন্দ্র সূর্য এই ছায়াপথের অংশ। অর্থাৎ আমরা থাকি এই
ছায়াপথে। এটি একটি
সর্পিলাকার ছায়াপথ। পৃথিবী হতে যেমন
দেখায় পৃথিবী আকাশগঙ্গা
ছায়াপথের একটি অংশে
অবস্থিত। এই ছায়াপথটি
রাতের বেলা পরিষ্কার
আকাশের এক প্রান্ত থেকে
অন্য প্রান্তে বিস্তৃত হালকা সাদা মেঘের মত দেখায়। খুব
হালকা দেখায় বলে, শহর
থেকে বা খুব বেশি উজ্জ্বল
আলো আছে এমন স্থান থেকে
আকাশগঙ্গা দেখা যায় না। আকৃতি আকাশগঙ্গার ব্যাস
আনুমানিকভাবে ১০০,০০০ আলোকবর্ষ বা ৯×১০ ১৭ কিলোমিটার । ধারণা করা হয় এই ছায়াপথে কমপক্ষে
২০০ বিলিয়ন থেকে সর্বোচ্চ
৪০০ বিলিয়ন পর্যন্ত নক্ষত্র রয়েছে। সাম্প্রতিক
পর্যবেক্ষনে দেখা যাচ্ছে,
আগের ধারণা থেকে
আকাশগঙ্গার ভর অনেক বেশি,
এর ভর আমাদের নিকটবর্তী
সবচেয়ে বড় ছায়াপথ অ্যান্ড্রোমিডা এর কাছাকাছি। আগে ধারণা
করা হত এর ঘূর্ণন গতি প্রায়
২২০ কিমি/সেকেন্ড, কিন্তু
সাম্প্রতিক গবেষণা অনুযায়ী
তা প্রায় ২৫৪ কিমি/
সেকেন্ড। এর ফলে আকাশগঙ্গার সর্বমোট ভর
হিসাব করা হয়েছে প্রায় ৩
ট্রিলিয়ন সৌর ভর , যা আগের ধারণার প্রায় দ্বিগুণ। বয়স আকাশগঙ্গার বয়স নির্ধারণ
করা অত্যন্ত কঠিন একটি
কাজ। এই ছায়াপথের
সবচেয়ে প্রাচীন নক্ষত্র হল
HE 1523-0901, যার বয়স প্রায় ১৩.২
বিলিয়ন বছর, প্রায় মহাবিশ্বের বয়সের সমান।
ধারণা করা হয়, আকাশগঙ্গার
সুচনা হয়েছে প্রায় ৬.৫ থেকে
১০.১ বিলিয়ন বছর আগে।
Post created by Sourav Sarkar.

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s