Statistical methods


Mission Geography India:
পরিসংখ্যান (Statistical methods):
পরিসংখ্যান (Statistics) এক ধরনের গাণিতিক বিজ্ঞান (Mathematical Science) যা মুলত: উপাত্ত সংগ্রহ, বিশ্লেষণ, ব্যাখ্যা ও উপাত্ত
সহজে পরিবেশন নিয়ে কাজ
করে। বিজ্ঞান ও সামাজিক
বিজ্ঞান, মানবিক এবং আরো
নানা শাখায় পরিসংখ্যানের
ব্যবহার রয়েছে। উপাত্ত বিশ্লেষন করে তা থেকে
তথ্যসমৃদ্ধ সিদ্ধান্ত (Informed
decision) গ্রহণে পরিসংখ্যানের
ভূমিকা অপরিহার্য। যে কোন
ধরণের গবেষণার জন্য
পরিসংখ্যান এর মৌলিক জ্ঞান থাকা আবশ্যক। তবে
জ্ঞাত বা অজ্ঞাতসারে
পরিসংখ্যানের অপব্যবহারও
হয়ে থাকে। যারা পরিসংখ্যানের চর্চা
করেন তাদেরকে
সাধারনভাবে
পরিসংখ্যানবিদ বলা হয়।
পরিসংখ্যানের সমস্যা গুলো
সাধারনত কোন নির্দিষ্ট গোষ্ঠী বা সমষ্টি নিয়ে
আবর্তিত হয়। তথ্যের
প্রাপ্যতা বা ব্যবস্থাপনা
যোগ্যতার ওপর ভিত্তি করে
সেই সমষ্টির প্রত্যেককে
নিয়ে অথবা তার একটা অংশকে নিয়ে কোন চয়ন
পদ্ধতিতে বিশ্লেষন করা
হয়। উৎপত্তি ও ক্রমবিকাশ পরিসংখ্যানের ইংরেজি
‘Statistics’ শব্দটি খুব সম্ভবত
ল্যাটিন শব্দ ‘Statuss’,
ইতালিয়ান শব্দ ‘Statista’ বা
জার্মান শব্দ ‘Statistik’ হতে
উৎপত্তি হয়েছে। ‘Statuss’ এবং ‘Statistik’ শব্দের অর্থ রাষ্ট্র আর
‘Statista’ শব্দের অর্থ রাষ্ট্রের
কার্যাবলী । এ থেকে বুঝা
যায় যে রাষ্ট্রের কাজ
পরিচালনা থেকেই
পরিসংখ্যানের উৎপত্তি হয়েছে । রাষ্ট্রের বিভিন্ন
তথ্য যেমন – লোকসংখ্যা,
রাজ্যবসের পরিমাণ,
জন্মমৃতু্য প্রভৃতি হিসাবের
জন্য এটি ব্যবহৃত হত.

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s