Origin of the Universe Part 4 – “মহা বিস্ফোরণ তত্ত্ব অনুসারে ভবিষ্যৎ”


**”Origin of the Universe”
Part-4
**Big Bang Theory:
“মহা বিস্ফোরণ তত্ত্ব
অনুসারে ভবিষ্যৎ” : মহাবিশ্বের চূড়ান্ত পরিণতি অদৃশ্য শক্তি আবিষ্কারের পূর্বে
বিশ্বতত্ত্ববিদগণ মহাবিশ্বের
পরিণতি সম্পর্কে দুইটি ধারণা পোষণ
করতেন। মহাবিশ্বের ভর ঘনত্ব যদি
ক্রান্তি ঘনত্বের চেয়ে বেশী হয় তবে
মহাবিশ্ব সম্প্রসারিত হয়ে একটি নির্দিষ্ট আকারে পৌঁছানোর পর আবার
সংকুচিত হতে শুরু করবে। তখন এটি
আবার ঘন ও উত্তপ্ত হতে থাকবে এবং
একসময় সেই আদি অবস্থায় পৌঁছুবে যে
অবস্থায় মহা সংকোচন শুরু হয়েছিলো। অন্যদিকে এই ঘনত্ব যদি ক্রান্তি
ঘনত্বের সমান বা কম হয় তবে একসময়
সম্প্রসারণ ধীর হয়ে যাবে, কিন্তু
কখনই শেষ হবে না। মহাবিশ্ব যতই
প্রসারিত হবে তত তার ঘনত্ব কমবে
এবং এর ফলে আর নতুন তারা গঠিত হবে না। মহাবিশ্বের গড় তাপমাত্রা
এসিম্পটোটিকভাবেপরম শূন্যের দিকে অগ্রসর হবে এবং মহা হিমায়ন (big freeze) অবস্থার সৃষ্টি হবে। এ সময় কৃষ্ণ
গহ্বরসমূহ স্বতঃ বাষ্পীভূত হবে। মহাবিশ্বের এনট্রপি বাড়তে বাড়তে এমন একটি বিন্দুতে পৌঁছাবে যখন এ
থেকে কোন সুসংগঠিত শক্তি পাওয়া
যাবে না। এই অবস্থার নাম
মহাবিশ্বের তাপীয় মৃত্যু । উপরন্তু, প্রোটন যদি অস্থিতিশীল হয় তাহলে হাউড্রোজেন (বর্তমান মহাবিশ্বের অন্যতম প্রাথমিক বেরিয়নিক নম্বর)
অদৃশ্য হয়ে যাবে, রয়ে যাবে কেবল
বিকিরণ। মহাবিশ্বের ত্বরণ সহকারে সম্প্রসারণের উপর আধুনিক পর্যবেক্ষণের ফলে আমরা জানতে
পারছি যে বর্তমান দৃশ্যমান মহাবিশ্ব
আমাদের ঘটনা দিগন্তের বাইরে চলে যাবে এবং আমরা আর বর্তমান দৃশ্যমান
স্থানগুলোকেও দেখতে পারবো না। এর
ফলে কি হতে পারে তা সঠিক জানা যায়
নি। মহাবিশ্বের ল্যাম্ব্ডা-সিডিএম নকশায় অদৃশ্য শক্তিকে একটি মহাজাগতিক ধ্রুবক হিসেবে দেখানো হয়েছে। এই তত্ত্বে বলা হয়েছে,
মহাবিশ্বের কেবল মহাকর্ষীয়ভাবে
সীমাবদ্ধ বস্তুগুলোই একসাথে থাকবে,
যেমন ছায়াপথ ; অবশ্য মহাবিশ্বের প্রসারণ ও শীতলায়নের ফলে এদেরও তাপীয় মৃত্যু ঘটবে। অন্য একটি মতবাদ হচ্ছে ফ্যান্টম শক্তি মতবাদ। এটি অনুসারে ছায়াপথ স্তবক, তারা, গ্রহ,
পরমাণু বা কেন্দ্রীন সবগুলোই এক সময়
ছিন্নভিন্ন হয়ে যাবে এবং চির
প্রসারণশীল মহাবিশ্বে এ কারণে এক
সময় বিগ রিপ সৃষ্টি হবে।
বিশ্বতত্ত্বে মহা বিস্ফোরণ তত্ত্বকে
অবশ্যম্ভাবী ধরলেও ভবিষ্যতে এর
সংস্কারের প্রয়োজন হতে পারে।
অতীতে যে সময়টিতে স্ফীতি শুরু
হয়েছে বলে আমরা ধরে নিয়েছি তা
সম্বন্ধে আমাদের প্রকৃত জ্ঞান খুব সীমিত। তত্ত্বের সাহায্য উপস্থাপিত
মহাবিশ্বের চিত্রের বাইরে আরও কিছু
থাকতে পারে। স্ফীতির ক্ষেত্রে আমরা
অবশ্যই ধরে নেই যে, সূচকীয়
সম্প্রসারণ মহাকাশের বৃহৎ অঞ্চলকে
আমাদের পর্যবেক্ষণযোগ্যদিগন্তের বাইরে ঠেলে দিয়েছে। তখন
প্রকৃতপক্ষে কি ঘটেছিল তা সম্বন্ধে
বিস্তারিত জ্ঞান পাওয়া যাবে যখন
উচ্চ শক্তি স্কেলে পদার্থবিজ্ঞানের
সূত্রসমূহ বোধগম্য হবে। এ সম্বন্ধে সকল
অনুমান কোয়ান্টাম মহাকর্ষ হিসেবে আলোচিত হয়।
***Mission Geography***
*Join our whatsapp group- 9735337699.

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s