Earth


**Earth পৃথিবী:-
পৃথিবী সূর্য থেকে দূরত্ব অনুযায়ী তৃতীয়, সর্বাপেক্ষা অধিক ঘনত্বযুক্ত
এবং সৌরজগতের আটটি গ্রহের মধ্যে পঞ্চম বৃহত্তম গ্রহ। এটি সৌরজগতের
চারটি কঠিন গ্রহের অন্যতম। পৃথিবীর অপর নাম ” বিশ্ব ” বা “নীলগ্রহ”। লাতিন ভাষায় এই গ্রহের নাম ” টেরা (Terra) ।
পৃথিবী হল মানুষ সহ কোটি কোটি প্রজাতির আবাসস্থল হল। পৃথিবীই একমাত্র মহাজাগতিক স্থান যেখানে প্রাণের অস্তিত্বের কথা বিদিত।
৪৫৪ কোটি বছর আগে পৃথিবী গঠিত হয়েছিল। এক বিলিয়ন বছরের মধ্যেই
পৃথিবীর বুকে প্রাণের আবির্ভাব ঘটে।
পৃথিবীর জৈবমণ্ডল এই গ্রহের বায়ুমণ্ডল ও অন্যান্য অজৈবিক অবস্থাগুলিতে গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন
এনেছে। এর ফলে একদিকে যেমন
বায়ুজীবী জীবজগতের বংশবৃদ্ধি
ঘটেছে, অন্যদিকে তেমনি ওজন স্তর গঠিত হয়েছে। পৃথিবীর চৌম্বকক্ষেত্রেরসঙ্গে একযোগে এই ওজন স্তরই ক্ষতিকর সৌর বিকিরণের গতিরোধ করে গ্রহের বুকে প্রাণের
বিকাশ ঘটার পথ প্রশস্ত করে দিয়েছে।
পৃথিবীর প্রাকৃতিক সম্পদ ও এর ভূতাত্ত্বিক ইতিহাস ও কক্ষপথ এই যুগে প্রাণের অস্তিত্ব রক্ষায় সহায়ক
হয়েছে। মনে করা হচ্ছে, আরও ৫০ কোটি
বছর পৃথিবী প্রাণধারণের সহায়ক অবস্থায় থাকবে।
পৃথিবীর উপরিতল একাধিক শক্ত স্তরে বিভক্ত। এগুলিকে টেকটনিক প্লেট বলা হয়। কোটি কোটি বছর ধরে এগুলি পৃথিবীর উপরিতলে এসে জমা হয়েছে।
পৃথিবীতলের প্রায় ৭১% লবণাক্ত
জলের মহাসাগর দ্বারা আবৃত।
অবশিষ্টাংশ গঠিত হয়েছে মহাদেশ ও অসংখ্য দ্বীপ নিয়ে। স্থলভাগেও
রয়েছে অজস্র হ্রদ ও জলের অন্যান্য
উৎস। এগুলি নিয়েই গঠিত হয়েছে
বিশ্বের জলভাগ । জীবনধারণের জন্য অত্যাবশ্যকীয় তরল জল এই গ্রহের
ভূত্বকের কোথাও সমভার অবস্থায় পাওয়া যায় না। পৃথিবীর মেরুদ্বয় সর্বদা কঠিন বরফ ( আন্টর্কটিক বরফের চাদর ) বা সামুদ্রিক বরফে (আর্কটিক বরফের টুপি ) আবৃত থাকে। পৃথিবীর অভ্যন্তরভাগ সর্বদা ক্রিয়াশীল। এই অংশ গঠিত হয়েছে একটি
আপেক্ষিকভাবে শক্ত ম্যান্টেলের মোটা স্তর, একটি তরল বহিঃকেন্দ্র (যা একটি চৌম্বকক্ষেত্র গঠন করে) এবং
একটি শক্ত লৌহ অন্তঃকেন্দ্র নিয়ে গঠিত। মহাবিশ্বের অন্যান্য বস্তুর সঙ্গে
পৃথিবীর সম্পর্ক বিদ্যমান। বিশেষ
করে সূর্য ও চাঁদের সঙ্গে এই গ্রহের বিশেষ সম্পর্ক রয়েছে। বর্তমানে
পৃথিবী নিজ কক্ষপথে মোটামুটি
৩৬৫.২৬ সৌরদিনে বা এক নক্ষত্র বর্ষে সূর্যকে প্রদক্ষিণ করে।
পৃথিবী নিজ অক্ষের উপর ২৩.৪ ডিগ্রি কোণে হেলে
রয়েছে। এর ফলে এক বিষুবীয় বছর (৩৬৫.২৪ সৌরদিন) সময়কালের মধ্যে
এই বিশ্বের বুকে ঋতুপরিবর্তন ঘটে থাকে।
পৃথিবীর একমাত্র বিদিত প্রাকৃতিক উপগ্রহ হল চাঁদ। ৪.৩৫ বিলিয়ন বছর আগে চাঁদ পৃথিবী
প্রদক্ষিণ শুরু করেছিল। চাঁদের গতির
ফলেই পৃথিবীতে সামুদ্রিক জোয়ারভাঁটা হয় এবং পৃথিবীর কক্ষের ঢাল সুস্থিত থাকে। চাঁদের গতিই ধীরে
ধীরে পৃথিবীর গতিকে কমিয়ে আনছে।
৩.৮ বিলিয়ন থেকে ৪.১ বিলিয়ন বছরের
মধ্যবর্তী সময়ে পরবর্তী মহাসংঘর্ষের সময় একাধিক গ্রহাণুর সঙ্গে পৃথিবীর সংঘর্ষে গ্রহের
উপরিতলের পরিবেশে উল্লেখযোগ্য
পরিবর্তন সাধিত হয়েছিল। গ্রহের খনিজ সম্পদ ও জৈব সম্পদ উভয়ই মানবজাতির জীবনধারণের জন্য
অপরিহার্য। এই গ্রহের অধিবাসীরা
প্রায় ২০০টি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্রে সমগ্র গ্রহটিকে বিভক্ত করে বসবাস করছে। এই সকল রাষ্ট্রের মধ্যে
পারস্পরিক কূটনৈতিক, পর্যটন,
বাণিজ্যিক ও সামরিক সম্পর্ক
বিদ্যমান। মানব সংস্কৃতি গ্রহ
সম্পর্কে বিভিন্ন ধারণার জন্মদাতা।
এই সব ধারণার মধ্যে রয়েছে পৃথিবীকে দেবতা রূপে কল্পনা, সমতল বিশ্ব কল্পনা এবং পৃথিবীকে মহাবিশ্বের কেন্দ্ররূপে কল্পনা । এছাড়া একটি সুসংহত পরিবেশ রূপে বিশ্বকে কল্পনা করার আধুনিক
প্রবণতাও লক্ষিত হয়। এই ধারণাটি
বর্তমানে প্রাধান্য অর্জন করেছে। নাম ও ব্যুৎপত্তি “পৃথিবী” শব্দটি সংস্কৃত । এর অপর নাম “পৃথ্বী”। পৃথ্বী ছিল পৌরাণিক “পৃথুর” রাজত্ব। এর সমার্থক শব্দ হচ্ছে; বসুধা,
বসুন্ধরা, ধরা, ধরণী, ধরিত্রী, ধরাতল,
ভূমি, ক্ষিতি, মহী, ইত্যাদি। গঠন আকৃতি পৃথিবী দেখতে পুরোপুরি গোলাকার নয়,
বরং কমলালেবুর মত উপর ও নিচের
দিকে কিছুটা চাপা এবং মধ্যভাগ
(নিরক্ষরেখার কাছাকাছি) স্ফীত।
এ’ধরণের স্ফীতি তৈরি হয়েছে নিজ
অক্ষকে কেন্দ্র করে এর ঘূর্ণনের কারণে। একই কারণে বিষুব অঞ্চলীয়
ব্যাস মেরু অঞ্চলীয় ব্যাসের তুলনায়
প্রায় ৪৩ কিমি. বেশি। রাসায়নিক গঠন পৃথিবীর ভর প্রায় ৫.৯৮×১০ ২৪ কিগ্রাঃ। এর প্রায় ৩২.১% লৌহ, ৩০.১%
অক্সিজেন, ১৫.১% সিলিকন, ১৩.৯%
ম্যাগনেসিয়াম, ২.৯% সালফার, ১.৮%
নিকেল, ১.৪% অ্যালুমিনিয়াম এবং
বাকী ১.২% অন্যান্য পদার্থ দ্বারা
গঠিত। তবে পৃথিবীর কেন্দ্রভাগের গঠন কিছুটা ভিন্ন; এর প্রায় ৮৮.৮%
ভাগই লৌহ। এছাড়া আছে নিকেল (৫.৮%)
ও সালফার (৪.৫%)। অভ্যন্তরীণ গঠন তাপ টেকটনিক পাতসমূহ ভূপৃষ্ঠ জলমণ্ডল বায়ুমণ্ডল বায়ুমণ্ডল গ্যাসের একটি আস্তরণ যা পর্যাপ্ত ভরসম্পন্ন কোন বস্তুর
চারদিকে ঘিরে জড়ো হয়ে থাকতে
পারে। বস্তুটির অভিকর্ষের কারণে এই
গ্যাসপুঞ্জ তার চারদিকে আবদ্ধ থাকে।
বস্তুর অভিকর্ষ যদি যথেষ্ট বেশি হয়
এবং বায়ুমণ্ডলের তাপমাত্রা যদি কম হয় তাহলে এই মণ্ডল অনেকদিন টিকে
থাকতে পারে। গ্রহসমূহের ক্ষেত্রে
বিভিন্ন ধরণের গ্যাস জড়ো হতে দেখা
যায়। এ কারণে গ্রহের বায়ুমণ্ডল
সাধারণ অপেক্ষাকৃত ঘন এবং গভীর হয়।
পৃথিবীর চারপাশে ঘিরে থাকা বিভিন্ন গ্যাস মিশ্রিত স্তরকে যা
পৃথিবী তার মধ্যাকর্ষণ শক্তি দ্বারা
ধরে রাখে তাকে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডল বা আবহমণ্ডল বলে।এই বায়ুমন্ডল সূর্য
থেকে আগত অতিবেগুনি রশ্মি শোষণ
করে পৃথিবীতে জীবের অস্তিত্ব রক্ষা
করে।এছাড়ও তাপ ধরে রাখার মাধ্যমে
(গ্রীনহাউজ প্রতিক্রিয়া) ভূপৃষ্টকে
উওপ্ত করে এবং দিনের তুলনায় রাতের তাপমাত্রা হ্রাস করে। আবহাওয়া এবং জলবায়ু আবহাওয়া হলো কোনো স্থানের স্বল্প সময়ের বায়ুমণ্ডলীয় অবস্থা।
সাধারণত এক দিনের এমন রেকর্ডকেই
আবহাওয়া বলে। আবার কখনও কখনও
কোনো নির্দিষ্ট এলাকার স্বল্প সময়ের
বায়ুমণ্ডলীয় অবস্থাকেও আবহাওয়া
বলা হয়। আবার কোনো স্থানের দীর্ঘ সময়ের আবহাওয়ার উপাত্তের
ভিত্তিতে তৈরি হয় সে স্থানের
জলবায়ু। আবহাওয়া নিয়ত
পরিবর্তনশীল একটি চলক। উচ্চতর বায়ুমণ্ডল চৌম্বকীয় ক্ষেত্র বার্ষিক ও আহ্নিক গতি আহ্নিক গতি পৃথিবী নিজের অক্ষের চারিদিকে
ঘূর্ণনকে পৃথিবীর আহ্নিক গতি বলে। এই গতি পশ্চিম থেকে পূর্বের দিকে ঘড়ির
কাঁটার বিপরীত অভিমুখে হয়ে থাকে।
পৃথিবীর আহ্নিক গতির অক্ষ উত্তর মেরু
ও দক্ষিণ মেরু অঞ্চলে ভূপৃষ্ঠকে ছেদ
করে। বার্ষিক গতি যে গতির ফলে পৃথিবীতে দিনরাত ছোট
বা বড় হয় এবং ঋতু পরিবর্তিত হয় তাকে
বার্ষিক গতি বলে। কক্ষের নতি এবং ঋতু পরিবর্তন বাসযোগ্যতা জীবমণ্ডল জীবনের বিবর্তন প্রাকৃতিক সম্পদ এবং ভূমি
ব্যবহার প্রাকৃতিক এবং পরিবেশগত
সমস্যা মানবীয় ভূগোল সাংস্কৃতিক এবং
ঐতিহাসিক দৃষ্টিভঙ্গী কালানুক্রম উৎপত্তি সৌরজগৎ সৃষ্টির মোটামুটি ১০০
মিলিয়ন বছর পর একগুচ্ছ সংঘর্ষের ফল
হলো পৃথিবী। আজ থেকে ৪.৫৪ বিলিয়ন
বছর আগে পৃথিবী নামের গ্রহটি আকৃতি
পায়, পায় লৌহের একটি কেন্দ্র এবং একটি বায়ুমণ্ডল।
সাড়ে ৪০০ কোটি বছর আগে দুটি গ্রহের তীব্র সংঘর্ষ
হয়। সংঘর্ষের তীব্রতা এতটাই ছিল
যে, জুড়ে যায় গ্রহ দুটি। পৃথিবী নামক
গ্রহের সঙ্গে চরম সংঘর্ষ হয়েছিল
থিয়া নামে একটি গ্রহের। সংঘর্ষের
সময় পৃথিবীর বয়স ছিল ১০ কোটি বছর। সংঘর্ষের জেরে থিয়া ও পৃথিবীর জুড়ে
যায়, তৈরি হয় নতুন গ্রহ। সেই
গ্রহটিতেই আমরা বাস করছি। তিনবার
চন্দ্র অভিযানে পাওয়া চাঁদের মাটি
এবং হাওয়াই অ্যারিজোনায় পাওয়া
আগ্নেয়শিলা মিলিয়ে চমকে যান গবেষকরা। দুটি পাথরের অক্সিজেন
আইসোটোপে কোনও ফারাক নেই।
গবেষকদলের প্রধান অধ্যাপক
এডওয়ার্ড ইয়ংয়ের কথায়, চাঁদের
মাটি আর পৃথিবীর মাটির অক্সিজেন
আইসোটোপে কোনও পার্থক্য পাইনি। থিয়া নামক গ্রহটি তখন পরিণত
হচ্ছিল। ঠিক সেই সময়েই ধাক্কাটি লাগে এবং পৃথিবীর সৃষ্টি হয়।
ভূতাত্ত্বিক ইতিহাস সম্ভাব্য ভবিষ্যৎ চাঁদ চাঁদ পৃথিবীর একমাত্র প্রাকৃতিক
উপগ্রহ এবং সৌর জগতের পঞ্চম বৃহৎ
উপগ্রহ। পৃথিবীর কেন্দ্র থেকে চাঁদের
কেন্দ্রের গড় দূরত্ব হচ্ছে ৩৮৪,৪০৩
কিলোমিটার (২৩৮,৮৫৭ মাইল) যা
পৃথিবীর ব্যাসের প্রায় ৩০ গুণ। চাঁদের ব্যাস ৩,৪৭৪ কিলোমিটার (২,১৫৯
মাইল) যা পৃথিবীর ব্যাসের এক-
চতুর্থাংশের চেয়ে সামান্য বেশি। এর
অর্থ দাড়াচ্ছে, চাঁদের আয়তন পৃথিবীর
আয়তনের ৫০ ভাগের ১ ভাগ। এর পৃষ্ঠে
অভিকর্ষ বল পৃথিবী পৃষ্ঠে অভিকর্ষ বলের এক-ষষ্ঠাংশ। পৃথিবী পৃষ্ঠে কারও
ওজন যদি ১২০ পাউন্ড হয় তা হলে
চাঁদের পৃষ্ঠে তার ওজন হবে মাত্র ২০
পাউন্ড। এটি প্রতি ২৭.৩ দিনে
পৃথিবীর চারদিকে একটি পূর্ণ আবর্তন
সম্পন্ন করে। প্রতি ২৯.৫ দিন পরপর চন্দ্র কলা ফিরে আসে অর্থাৎ একই
কার্যক্রিয় আবার ঘটে। পৃথিবী-চাঁদ-
সূর্য তন্ত্রের জ্যামিতিতে
পর্যায়ক্রমিক পরিবর্তনের কারণেই
চন্দ্র কলার এই পর্যানুক্রমিক আবর্তন
ঘটে থাকে। বেরিকেন্দ্র নামে পরিচিত একটি
সাধারণ অক্ষের সাপেক্ষে পৃথিবী এবং
চন্দ্রের ঘূর্ণনের ফলে যে মহাকর্ষীয়
আকর্ষণ এবং কেন্দ্রবিমুখী বল সৃষ্টি
হয় তা পৃথিবীতে জোয়ার-ভাটা সৃষ্টির
জন্য অনেকাংশে দায়ী। জোয়ার-ভাটা সৃষ্টির জন্য যে পরিমাণ শক্তি শোষিত
হয় তার কারণে বেরিকেন্দ্রকে কেন্দ্র
করে পৃথিবী-চাঁদের যে কক্ষপথ রয়েছে
তাতে বিভব শক্তি কমে যায়। এর
কারণে এই দুইটি জ্যোতিষ্কের মধ্যে
দূরত্ব প্রতি বছর ৩.৮ সেন্টিমিটার করে বেড়ু যায়। যতদিন না পৃথিবীতে
জোয়ার-ভাটার উপর চাঁদের প্রভাব
সম্পূর্ণ প্রশমিত হচ্ছে ততদিন পর্যন্ত
চাঁদ দূরে সরে যেতেই থাকবে এবং
যেদিন প্রশমনটি ঘটবে সেদিনই
চাঁদের কক্ষপথ স্থিরতা পাবে। গ্রহাণু এবং কৃত্রিম
উপগ্রহ গ্রহাণু হল প্রধানত পাথর দ্বারা গঠিত বস্তু যা তার তারাকে কেন্দ্র
করে আবর্তন করে। আমাদের সৌরজগতে
গ্রহাণুগুলো ক্ষুদ্র গ্রহ (Minor planet
অথবা Planetoid) নামক শ্রেণীর সবচেয়ে
পরিচিত বস্তু। এরা ছোট আকারের গ্রহ
যেমন বুধের চেয়েও ছোট। বেশিরভাগ গ্রহাণুই মঙ্গল এবং বৃহস্পতি গ্রহের
মধ্যবর্তী স্থানে অবস্থিত গ্রহাণু
বেল্টে থেকে নির্দিষ্ট উপবৃত্তাকার
কক্ষপথে সূর্যকে আবর্তন করে। ধারণা
করা হয় গ্রহাণুগুলো ভ্রূণগ্রহীয়
চাকতির (Protoplanetarydisc) অবশিষ্টাংশ। বলা হয় গ্রহাণু বেল্টের
অঞ্চলে সৌরজগতের গঠনের প্রাথমিক
সময় যেসকল ভ্রূণগ্রহ সৃষ্টি হয়েছিলো
তাদের অবশিষ্টাংশ বৃহস্পতির আবেশ
দ্বারা সৃষ্ট মহাকর্ষীয় অক্ষ বিচলনের
কারণে গ্রহের সাথ মিলিত হবার সুযোগ পায়নি। আর এই অবশিষ্টাংশই
গ্রহাণু বেল্টের উৎপত্তির কারণ। কিছু
গ্রহাণুর চাঁদও রয়েছে। কৃত্রিম উপগ্রহ হলো মহাকাশে উৎক্ষেপিত বৈজ্ঞানিক প্রক্রিয়ায়
উদ্ভাবিত উপগ্রহ।
***Mission Geography***

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s