নদীর মধ্যগতি ও সৃষ্ট ভুমিরূপ


►নদীর মধ্যগতি : নদীর বহন ও অবক্ষেপণের ফলে সৃষ্ট ভুমিরূপ :
নদীর মধ্যগতি ও মধ্যগতিতে নদীর প্রধান কাজ :-
উত্তর: পার্বত্য অঞ্চল ছাড়িয়ে কোনো নদী যখন সমভূমির ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয় তখন ওই নদীর গতিপ্রবাহকেমধ্যগতি বা সমভূমি প্রবাহবলে । মধ্যগতিতে নদীক্ষয়, সঞ্চয় ও বহনএই তিন ধরনের কাজই করে থাকে । নদীর মধ্যগতিতে উচ্চগতির তুলনায় নদীর গতিপ্রবাহ অপেক্ষাকৃত কম থাকায় ক্ষয়কাজের পরিমাণ অনেক কমে যায় । আবার নদীর মধ্যগতিতে নিম্নগতির তুলনায় নদীর গতিপ্রবাহ অপেক্ষাকৃত বেশি থাকায় সঞ্চয় কাজও কম হয় । কাজেই মধ্যগতিতে নদীর প্রধান কাজই হল বহন করা । মধ্যগতিতে স্রোতের বেগ কমে যাওয়ায় পার্বত্যঅঞ্চল থেকে বয়ে নিয়ে আসা নুড়ি, বালি, কাঁকর, কাদামাটি, শিলাচূর্ণ, পলিমাটি প্রভৃতি নদী আর বহন করতে পড়ে না । তখন সেগুলি নদী তার দুই তীরে সঞ্চিত করে এবং নানা রকম ভূমিরূপ গঠন করে । হরিদ্বার থেকে ধুলিয়ান পর্যন্ত অংশে গঙ্গার গতিপ্রবাহ হল গঙ্গার মধ্যগতি বা সমভূমি প্রবাহ ।
♦ নদীর বাঁক[Meander]: নদীর মধ্যগতিতে সমভূমির উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ার সময় যে সমস্ত রকম ভূমিরূপের সৃষ্টি হয়,নদীর বাঁক[Meander] হল তাদের মধ্যে অন্যতম । মধ্যগতিতে এবং বিশেষ করে নিম্নগতিতে নদীর স্রোতের বেগ কমে যাওয়ায় নদী কোনো রকম বাধা অতিক্রম করার শক্তি হারিয়ে ফেলে । নদী তার গতিপথে বাধা পেলে সেই বাধা এড়িয়ে আঁকা বাঁকা পথে নদী প্রবাহিত হতে থাকে । এই সময় নদীপ্রবাহের বাঁকা অংশকেনদীর বাঁক [Meander] বলা হয় । বারাণসীর কাছে গঙ্গানদীর সুন্দরনদীর বাঁক[Meander] দেখা যায় ।
♦ অশ্বক্ষুরাকৃতি হ্রদ[Ox-bow Lake বা Horse-bow Lake]: নদীর মধ্যগতিতে নদীর সঞ্চয়কাজের ফলে যে সমস্ত রকম ভূমিরূপের সৃষ্টি হয়,অশ্বক্ষুরাকৃতি হ্রদ[Ox-bow Lake বা Horse-bow Lake] হল তাদের মধ্যে অন্যতম । বাঁক ঘোরার সময় নদী তীরের যে জায়গা ঠিক স্রোতের মুখে পড়ে, সেই জায়গায় স্রোতের আঘাত সবচেয়ে বেশি লাগে । ফলে ওই জায়গায় নদী তীর ভাঙ্গতে থাকে এবং অপর দিকে নদী তীরে স্রোতের আঘাত বিশেষ না লাগায় নদী বাহিত বালি, পলি, কাদা, কাঁকর, শিলাচূর্ণ, নুড়ি প্রভৃতি জমে চড়ার সৃষ্টি হয় । এই প্রক্রিয়া ক্রমাগত চলার ফলে নদীর বাঁক বাড়তে থাকে ও দুই বাঁকের মধ্যবর্তী স্থান ক্রমাগত ক্ষয় পেতে থাকে ও সংকীর্ণ হতে থাকে । শেষ পর্যন্ত দুই বাঁক পরস্পরের সঙ্গে মিলে যায় এবং নদীর পুরনো খাতের মুখ বন্ধ হয়ে বাওড় বা হ্রদের সৃষ্টি হয় । এই রকম হ্রদ ঘোড়ার খুরের মত দেখতে হয়, তখন তাকেঅশ্বক্ষুরাকৃতি হ্রদ[Horse-bow বা Ox-bow Lake] বলা হয় । নদীর দুই বাঁকের মধ্যবর্তী পরস্পরের সঙ্গে মিলে জুড়ে গেলে নদী আবার সোজা পথে অগ্রসর হয় ।
***Mission Geography***

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s