জোয়ারভাটা [Tides]


☼জোয়ারভাটা[Tides]:-
মুখ্যত চন্দ্রের আকর্ষণী শক্তির প্রভাবে এবং অপেক্ষাকৃত কম মাত্রায় সূর্যের আকর্ষণী শক্তির প্রভাবে নিয়মিতভাবে দিনে দু’বার করে পর্যায়ক্রমে সমুদ্রের জল এক জায়গায় ফুলে ওঠে, আবার এক জায়গায় নেমে যায় । চন্দ্র ও সূর্যের আকর্ষণে সমুদ্রের জলরাশির এই নিয়মিত ফুলে ওঠা বা জলস্ফীতিকে জোয়ার [High Tide] এবং সমুদ্রের জলরাশির এই নিয়মিত নেমে যাওয়া বা সমুদ্রজলের অবনমনকে ভাটা [Low Tide] বলে । সমুদ্রের জল ফুলে ওঠার ফলে সেই জল উপকূলের কাছাকাছি নদনদীতে ঢুকে পড়ে । সেইজন্য উপকূলের কাছাকাছি নদনদীতে জোয়ারভাটার খেলা দেখা যায় । স্থলভাগ দিয়ে ঘেরা অগভীর সমুদ্রে জোয়ারভাটার সময় জলতলের পার্থক্য মাত্র ১ মিটারেরও কম হয় ।
☼জোয়ারভাটা সৃষ্টির কারণ:-ভূপৃষ্ঠে জোয়ার-ভাটা সৃষ্টির প্রধান কারণ হল:- (১) চন্দ্র ও সূর্যের আকর্ষণ ও (২) পৃথিবীর আবর্তনের ফলে উৎপন্ন বিকর্ষণী শক্তি ।
(১)চন্দ্র-সূর্যের আকর্ষণ:- পৃথিবীতে সমস্ত বস্তুই পরস্পরকে আকর্ষণ করে । এই আকর্ষণের নাম মহাকর্ষণ । মহাকর্ষণের ফলে পৃথিবী সূর্যের চারিদিকে এবং চন্দ্র পৃথিবীর চারিদিকে ঘুরে বেড়ায় । আবার এই মহাকর্ষণের পরিমাণ সব জায়গায় সমান নয় । যে বস্তু যত বড় তার আকর্ষণ ক্ষমতা তত বেশি । কিন্তু দূরত্ব বাড়লে আকর্ষণের কার্যকরী ক্ষমতা বহু গুণে কমে যায় । সূর্য এবং চন্দ্র উভয়েই পৃথিবীকে আকর্ষণ করছে । সূর্য চন্দ্রের চেয়ে অনেক বেশি বড় হলেও সূর্যের তুলনায় চন্দ্র পৃথিবীর কাছে আছে বলে জোয়ারভাটা সৃষ্টির ক্ষেত্রে সূর্যের আকর্ষণের তুলনায় চন্দ্রের আকর্ষণই বেশি কার্যকরী হয় । সূর্যের ভর চন্দ্রের ভরের তুলনায় ২ কোটি ৬০ লক্ষ গুণ বেশি হওয়া সত্ত্বেও সূর্য চন্দ্রের প্রায় ৩৮০ গুণ দূরে অবস্থিত । এইজন্য পৃথিবীর জলভাগের ওপর চন্দ্রের আকর্ষণী ক্ষমতা সূর্যের প্রায় দ্বিগুণ হওয়ায় সূর্যের চেয়ে প্রধানত চন্দ্রের আকর্ষণেই জোয়ারভাটা হয় । চন্দ্র ও সূর্যের আকর্ষণী শক্তির প্রভাবে কঠিন পদার্থের তুলনায় পৃথিবীর তরল জলরাশি খুবভ সহজে প্রবাহিত হয়ে জোয়ারের সৃষ্টি করে । পৃথিবীর জলরাশির পরিমাণ সুনির্দিষ্ট হওয়ায়, চন্দ্র-সূর্যের আকর্ষণ প্রভাবিত স্থানের দিকে পৃথিবীর জলরাশি চলে যাওয়ায় কম আকর্ষণযুক্ত স্থানে ভাটার সৃষ্টি হয় ।
(২)পৃথিবীর আবর্তনের ফলে উৎপন্ন বিকর্ষণী শক্তি:- পৃথিবীর আবর্তনের ফলে ভূপৃষ্ঠের সব জিনিস বাইরে ছিটকে চলে যেতে চায় । এর নাম বিকর্ষণ শক্তি । ভূপৃষ্ঠের জলরাশির উপর এই বিকর্ষণ শক্তির প্রভাব পরিলক্ষিত হয় । পৃথিবীর আবর্তনের ফলে উৎপন্ন বিকর্ষণী শক্তি ভূপৃষ্ঠে জোয়ারভাটা সৃষ্টির অন্যতম কারণ ।
☼মুখ্য জোয়ার[Primary Tide]:
(১) পৃথিবীর আবর্তন গতি এবং পৃথিবীকে চন্দ্রের পরিক্রমণের ফলে পৃথিবী ও চন্দ্রের অবস্থান বৈশিষ্ট্যের পরিবর্তন হয়, এর ফলে জোয়ারভাটারও তারতম্য হয় ।
(২) পৃথিবীর আবর্তনের ফলে পৃথিবী পৃষ্ঠের যে স্থান ঠিক চন্দ্রের সামনে এসে উপস্থিত হয়, সেখানে চন্দ্রের আকর্ষণ সবচেয়ে বেশি কার্যকরী হওয়ার জন্য সেখানে প্রবল টান অনুভূত হয় । স্থলভাগের চেয়ে তরল জলভাগের ওপর আকর্ষণশক্তির কার্যকারিতা অনেক বেশি । তাই সেখানকার জলরাশি চন্দ্রের আকর্ষণে স্ফীত হয়ে ওঠে এবং পৃথিবীর অন্যান্য স্থানের জলভাগ থেকেও কিছু জল ওই স্থানে চলে আসে । ফলে পৃথিবী পৃষ্ঠের ওই অংশে জোয়ারের সৃষ্টি হয় । এভাবে চন্দ্রের আকর্ষণে যেখানে যে জোয়ার হয় তাকেমুখ্য জোয়ারবা চান্দ্র জোয়ারবাপ্রত্যক্ষ জোয়ারবলে ।
(৩) পূর্ণিমা তিথিতে চন্দ্রের আকর্ষণ স্থলের বিপরীত দিকে সূর্যের আকর্ষণেও এইরকম মুখ্য জোয়ার হয় ।
☼গৌণ জোয়ার[Secondary Tide]:চন্দ্র যেখানে আকর্ষণ করে মুখ্য জোয়ার সৃষ্টি করেছে, ঠিক সেই সময়ে চন্দ্রের বিপরীত দিকে প্রতিপাদ স্থানে পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণ শক্তির প্রভাব কম হয় বলে বিপরীত দিকে অবস্থিত জলরাশি প্রধানত পৃথিবীর আবর্তনের ফলে সৃষ্ট প্রবল বিকর্ষণ শক্তির প্রভাবে স্ফীত হয়ে জোয়ার সৃষ্টি করে । তখন তাকে গৌণ জোয়ারবাগৌণ চান্দ্র জোয়ারবাঅপ্রত্যক্ষ জোয়ারবলে । এছাড়া পৃথিবীর যে অংশে মুখ্য জোয়ার হয় ঠিক তার বিপরীত দিকের স্থলভাগ জলভাগের চেয়ে চন্দ্রের বেশি কাছে থাকে । চাঁদ থেকে ওই স্থানের জলভাগের দূরত্ব বেশি হওয়ায় জলের ওপর চাঁদের আকর্ষণ কমে যায় ফলে পৃথিবীর আবর্তনের দ্বারা সৃষ্ট প্রবল বিকর্ষণ শক্তির প্রভাবে সেখানকার জলও ফুলে উঠে গৌণ জোয়ারের সৃষ্টি করে । সুতরাং একই সময়ে পৃথিবীর দুটি বিপরীত প্রান্তে একই সঙ্গে জোয়ারের উত্পত্তি হয় ।
পৃথিবীর যে দুদিকে জোয়ার হয়, সেই দুদিকে জল জমা হয়, ফলে তাদের সমকোণে অবস্থিত জায়গা দুটিতে তখন জল নেমে যায় অর্থাৎ ভাটার সৃষ্টি হয় ।
☼ভরা জোয়ার[Spring Tide]:- পৃথিবীর সব জায়গায় সব দিন জোয়ারের পরিমাণ একই থাকে না । তিথি অনুসারে জোয়ারভাটা বাড়ে ও কমে । অমাবস্যা এবং পূর্ণিমা তিথিতে সূর্য ও চন্দ্রের মিলিত বলের প্রবল টানে যে তীব্র জোয়ার সৃষ্টি হয় তাকেভরা জোয়ারবাতেজ কোটালবাভরা কোটালবলে । অমাবস্যা এবং পূর্ণিমা তিথিতে সূর্য, চন্দ্র এবং পৃথিবী প্রায় একই সরলরেখায় অবস্থান করে । অমাবস্যা তিথিতে পৃথিবীর একই পাশে চন্দ্র ও সূর্য এবং পূর্ণিমা তিথিতে সূর্য ও চন্দ্রের মাঝে পৃথিবী অবস্থান করে । সেইজন্য চন্দ্রের আকর্ষণে যেখানে জোয়ার হয়; সূর্যও সেখানে আকর্ষণ করে জোয়ার সৃষ্টিতে সাহায্য করে । এই দুই তিথিতে সূর্য ও চন্দ্রের মিলিত আকর্ষণে জোয়ারের স্থানে খুব বেশি মাত্রায় জলস্ফীতি এবং ভাটার টানে জলস্তর বেশি মাত্রায় নেমে যায় অর্থাৎ সূর্য ও চন্দ্র একে অপরের পরিপূরক হিসেবে ভরা জোয়ার উৎপন্ন করে । এসময় জোয়ার ও ভাটার মধ্যে জলতলের পার্থক্য খুব বেশি মাত্রায় বেড়ে যায় । প্রতি মাসে দুবার করে ভরা জোয়ার সংঘটিত হয় ।
☼মরা জোয়ার[Neap Tide]:সূর্যের আকর্ষণ শক্তি চন্দ্রের আকর্ষণ শক্তির প্রায় অর্ধেক । কৃষ্ণ ও শুক্ল পক্ষের অষ্টমী তিথিতে, সূর্য ও চন্দ্র পৃথিবীর সঙ্গে একই সরলরেখায় না থেকে সমকোণে অবস্থান করে । পৃথিবীর যে স্থানটি চন্দ্রের সবচেয়ে কাছে থাকে, সেই স্থানকে চন্দ্র যখন আকর্ষণ করে, তখন ভূপৃষ্ঠের যে স্থানটি সূর্যের সবচেয়ে কাছে থাকে, সূর্যও সেই স্থনটিকে আকর্ষণ করে । কাজেই ওই অবস্থায় চন্দ্রের প্রভাবে যেখানে জোয়ার হয়, তার প্রায় সমকোণী স্থানে সূর্যের প্রভাবেও জোয়ার হয় । এর ফলে চন্দ্রের আকর্ষণে যে দুই স্থানের জল ফুলে উঠতে চেষ্টা করে, সূর্যের আকর্ষণ সেই দুই স্থানের জলের উচ্চতা কমাতে চেষ্টা করে । এর ফলে জোয়ারের তীব্রতা কমে যায় এবং ভাটার ফলে জলের অবনমনও কিছুটা কমে যায়, ফলে জোয়ার এবং ভাটার জলতলের পার্থক্য অস্বাভাবিক হ্রাস পায় । এই রকম জোয়ারকেমরা জোয়ারবামরা কোটালবলে । সাধারণত প্রতিমাসে দু-বার মরা জোয়ার দেখা যায় ।
☼ভরা জোয়ারের তুলনায় মরা জোয়ারে জলস্ফীতি অপেক্ষাকৃত কম হয়।
(১) অমাবস্যা ও পূর্ণিমা তিথিতে ভরা জোয়ারের সময় সূর্য, চন্দ্র ও পৃথিবী একই সরলরেখায় অবস্থান করায় এই দুই তিথিতে সূর্য ও চন্দ্রের মিলিত বলের টানে জোয়ারের স্থানে খুব বেশি মাত্রায় জলস্ফীতি হয় । অন্যদিকে,
(২) কৃষ্ণ ও শুক্ল পক্ষের অষ্টমী তিথিতে মরা জোয়ারের সময় সূর্য ও চন্দ্র পৃথিবীর সঙ্গে পরস্পর লম্বভাবে অবস্থান করায় পৃথিবীর যে স্থানটি চন্দ্রের সবচেয়ে কাছে থাকে, সেই স্থানকে চন্দ্র যখন আকর্ষণ করে, ভূপৃষ্ঠের যে স্থানটি সূর্যের সবচেয়ে কাছে থাকে, সূর্যও সেই স্থানটিকে আকর্ষণ করে । কাজেই ওই অবস্থায় চন্দ্রের প্রভাবে যেখানে জোয়ার হ্য়, তার প্রায় সমকোণী স্থানে সূর্যের প্রভাবেও জোয়ার হয় । এর ফলে চন্দ্রের আকর্ষণে যে দুই স্থানে জল ফুলে উঠতে চেষ্টা করে, সূর্যের আকর্ষণ সেই দুই স্থানের উচ্চতা কমাতে চেষ্টা করে যার ফলে মরা জোয়ারের সময় জলস্ফীতি কমে যায় । এই কারণে ভরা জোয়ায়্রের তুলনায় মরা জোয়ারের জলস্ফীতি অপেক্ষাকৃত কম হয় ।
☼জোয়ারভাটার গতিবিধি[Timings of Tides]:- পৃথিবীর সর্বত্র দিনে একবার মুখ্য জোয়ার ও একবার গৌণ জোয়ার আসে । একটি মুখ্য জোয়ারের পর পরবর্তী মুখ্য জোয়ার ঠিক 24 ঘন্টা পরে আসে না, প্রায় 25 ঘন্টা (24 ঘন্টা 52 মিনিট) পরে আসে ।
চন্দ্র যদি স্থির থাকত, তাহলে পৃথিবীর প্রতিটি স্থান 24 ঘন্টা অন্তর একবার চন্দ্রের সামনে আসত এবং সেখানে মুখ্য জোয়ার হত । কিন্তু চন্দ্রও নিজের কক্ষে অবস্থান করে পশ্চিম থেকে পূর্বে 27 দিনে পৃথিবীকে একবার প্রদক্ষিণ করে । পৃথিবী গোলক বলে তার পরিধির কৌণিক পরিমাণ 360° । এই 360° প্রদক্ষিণ করতে চন্দ্রের 27 দিন সময় লাগে । সুতরাং পৃথিবীর একবার আবর্তনের সময়ে [অর্থাৎ 24 ঘন্টায়] চন্দ্র নিজের কক্ষপথের প্রায় [360 ÷ 27 = 13.3°] 13° পথ এগিয়ে যায় । এই পথ যেতে পৃথিবীর আরও [13° x 4 = 52] 52 মিনিট সময় লাগে । সেইজন্য পৃথিবীর কোনো জায়গায় একটি মুখ্য জোয়ারের পর পরবর্তী মুখ্য জোয়ার ঠিক 24 ঘন্টা পরে না এসে 24 ঘন্টা 52 মিনিট পরে আসে । প্রত্যেক জায়গায় দিনে একবার মুখ্য জোয়ার ও একবার গৌণ জোয়ার হয়; মুখ্য জোয়ার ও গৌণ জোয়ারের মধ্যে সময়ের ব্যবধান প্রায় 12 ঘন্টা 26 মিনিট । প্রত্যেক জোয়ারের প্রায় 6 ঘন্টা 13 মিনিট পরে সেখানে ভাটার মাঝ সময় আসে ।
☼দিনে দু-বার জোয়ার হয়:-পৃথিবীর যে অংশে মুখ্য জোয়ার হয় তার বিপরীত বা প্রতিপাদ স্থানে তখন গৌণ জোয়ার হয় । আর মুখ্য এবং গৌণ জোয়ার যে স্থানে সংঘটিত হয় তার সমকোণে অবস্থিত স্থানে ভাটা হয় । এদিকে পৃথিবীর আবর্তন গতির ফলে যে স্থানে যখন মুখ্য জোয়ার হয়, তার ১২ ঘন্টা ২৬ মিনিট পর ওই স্থানে মুখ্য জোয়ারের স্থানের বিপরীত বা প্রতিপাদ স্থানটি চন্দ্রের ঠিক সামনে এসে পৌঁছায় এবং সে স্থানে তখন প্রধানত চন্দ্রের আকর্ষণে মুখ্য জোয়ার হয় । তখনই তার বিপরীত দিকে অর্থাৎ প্রথমে যে স্থানে মুখ্য জোয়ার হয়েছিল সেখানে গৌণ জোয়ার হয় । অতএব, পৃথিবীর একবার আবর্তন কালে (অর্থাৎ ২৪ ঘন্টায়) পৃথিবীর প্রত্যেক স্থান একবার চন্দ্রের সন্মুখীন হয় বলে, ভূপৃষ্ঠের জলভাগের প্রত্যেক স্থানে দিনে দুবার জোয়ার হয়, যথা: (১) একবার মুখ্য জোয়ার এবং (২) একবার গৌণ জোয়ার ।
☼ভূপৃষ্ঠের একটি স্থানে মুখ্য জোয়ারের ২৪ ঘন্টা ৫২ মিনিট পরে আবার সেখানে মুখ্য জোয়ার হয়
চন্দ্র পৃথিবীর চারিদিকে 27 দিনে একবার 360° কৌণিক পথে ঘুরে আসে অর্থাৎ 24 ঘন্টায় চন্দ্র কমপক্ষে 360 ÷ 27 = প্রায় 13° কৌণিক পথ অতিক্রম করে । পৃথিবীর এই 13° পথ অগ্রসর হতে আরও (13 x 4) = 52 মিনিট সময় লাগে । এইজন্য পৃথিবীর কোনো অংশেই প্রতিদিন একই সময় মুখ্য জোয়ার হয় না । পৃথিবীর কোনো নির্দিষ্ট স্থানে প্রত্যেক মুখ্য বা গৌণ জোয়ার আরও 52 মিনিট পরে (অর্থাৎ মোট 24 ঘন্টা 52 মিনিট পরে) অনুষ্ঠিত হয় । পৃথিবীর একই নির্দিষ্ট স্থানে কোনো দিন যে সময় মুখ্য জোয়ার হয় তার 12 ঘন্টা 26 মিনিট (24 ঘন্টা 52 মিনিট ÷ 2) পরে সেখানে গৌণ জোয়ার হয় এবং ওই মুখ্য জোয়ারের 24 ঘণ্টা 52 মিনিট পরে সেখানে পুনরায় মুখ্য জোয়ার হয় । অর্থাৎ দুটি মুখ্য জোয়ারের মধ্যে সময়ের পার্থক্য হল 24 ঘন্টা 52 মিনিট ।
☼বান ডাকা[Tidal Bores]:- সাধারণত বর্ষাকালে অমাবস্যা ও পূর্ণিমার ভরা কোটালের সময় চন্দ্র ও সূর্যের মিলিত আকর্ষণে জোয়ারের জল নদীর খাড়িপথ ও মোহনা দিয়ে নদী প্রবাহের বিপরীত দিকে অগ্রসর হয় । ঢেঊ, জলোচ্ছ্বাসসহ নদীর এই সগর্জন বিপরীত প্রবাহকেবানবাবান ডাকাবলে । পশ্চিমবঙ্গের হুগলি, চিনের ইয়াং-সি-কিয়াং, দক্ষিণ আমেরিকার আমাজন নদীতে, ব্রিটিশ দ্বীপপুঞ্জের টেমস প্রভৃতি নদী-মোহনায় বর্ষাকালে ভরা কোটালের মাত্রা অনেক সময় ৬-৯ মিটারের মতো উঁচু হয় । এই উঁচু জল যখন নদীপথে প্রবল বেগে দেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে, তখন তাকে বান ডাকা বলে । এই সময় নদীতে স্নান অথবা নৌ-চালনা করা অত্যন্ত বিপজ্জনক । এই ঢেউ ফেনিল তরঙ্গের আকারে ঘন্টায় কয়েক কিলোমিটার বেগে অগ্রসর হয় ।
☼বান সৃষ্টির কারণ:
(১) নদীর মোহনার কাছে বালির চড়া থাকলে,
(২) নদীতে প্রবাহিত জলের পরিমাণ বেশি হলে এবং
(৩) নদীর মোহনা ফানেল বা শঙ্কু আকৃতির হলে নদীতে বান খুব প্রবল হয় ।
☼ষাঁড়াষাঁড়ি বান:ষাঁড়াষাঁড়ি বান হল বিশেষ একটি নদীর বিশেষ সময়ের বান । বর্ষাকালে হুগলি নদীতে ভরা জোয়ারের সময় নদীর গতিপথের বিপরীত দিকে ভীষণ গর্জন করে যে প্রবল বান আসে তাকেষাঁড়াষাঁড়ি বানবলে । বর্ষার সময় সাধারণত জুলাই-আগস্ট মাসে হুগলি নদীতে এমনিতেই জলপ্রবাহ খুব বেশি থাকে । এই সময় হুগলি নদীতে যে প্রবল বান আসে তার জন্য হুগলি নদীর জল প্রায় ৭/৮ মিটার পর্যন্ত উঁচু হয়ে ওঠে । দুটি প্রাপ্ত বয়ষ্ক ষাঁড়ের মধ্যে লড়াইয়ের সময় যে প্রবল গর্জন শোনা যায়, এই বান আসার সময় অনেকটা ওই রকম আওয়াজ পাওয়া যায় বলে একে ষাঁড়াষাঁড়ি বান বলা হয় ।
☼জোয়ার ভাটার ফলাফল[Impact of Tides]:-সমুদ্র উপকূলে ও উপকুলের কাছে নদনদীতে জোয়ার ভাটার প্রভাব বেশি । জোয়ার ভাটার নিম্নলিখিত ফলাফল গুলি :-
• জোয়ারভাটার সুফল:
১) জোয়ারের ফলে নদীর জল নির্মল থাকে ।
২) জোয়ার ভাটার ফলে নদী থেকে আবর্জনা সমুদ্রে গিয়ে পড়ে । ফলে ভাটার টানে নদী আবর্জনা ও পলিমুক্ত হয় ।
৩) জোয়ারের জলের টানে নদী-মোহনায় সঞ্চিত পলিমাটি সমুদ্রের দিকে চলে যায় ও নদী মোহনা পলিমুক্ত হয় এবং বদ্বীপ গঠনে বাধা পড়ে ।
৪) জোয়ারের জল নদী-খাতে ঢুকে এর বিস্তার ও গভীরতা বৃদ্ধি করে, ফলে বড় বড় সমুদ্রগামী জাহাজ দেশের অভ্যন্তরে নদী-বন্দরে ঢুকতে পারে ও ব্যবসা-বাণিজ্যের সুবিধা হয় । যেমন জোয়ারের সময় হুগলী নদীর মধ্য দিয়ে বড় বড় জাহাজ কলকাতা বন্দরে আসে ।
৫) আজকাল উন্নত দেশগুলিতে জোয়ারের জলকে কাজে লাগিয়ে জলবিদ্যুৎ উৎপন্ন করা হয় ।
• জোয়ারের কুফল:
১) জোয়ারের জল অনেক সময় নদী মোহনার পলি তুলে নিয়ে দেশের অভ্যন্তরে নদীগর্ভে জমা করে নদীর গভীরতা কমিয়ে ফেলে ।
২) জোয়ারের ফলে নদীর মিষ্টি জল লবণাক্ত হয়ে যাওয়ায় তা খাওয়া ও সেচের কাজে অনুপযুক্ত হয়ে পড়ে ।
৩) প্রবল জোয়ারের ফলে নদীতে যে জলস্ফীতি ঘটে তার ফলে অনেক সময় নদী তীরের চাষ-আবাদ ও বাড়ি-ঘরের ক্ষয়ক্ষতি হয় ।
৪) প্রবল জোয়ারের ফলে নদীতে বান আসলে তার ফলে নৌকাডুবি এবং জীবন হানির সম্ভাবনা থাকে ।
***Mission Geography***

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s