Dot Map ( বিন্দু মানচিত্র )


**Dot Map ( বিন্দু মানচিত্র ):-
বিন্দু বা Dot এর দ্বারা গঠিত মানচিত্র মাত্রাহীন মাপচিত্রকে চিহ্নিত করে । ডট্ বা বিন্দু প্রকৃতপক্ষে প্রতীক চিহ্নের এক সহজতম রূপ । এটি বণ্টন মানচিত্র নির্মাণে বিশেষ উপযোগী । এই চিহ্নের সাহায্যে বণ্টন মানচিত্র গঠিত হয় বলে একে বিন্দু মানচিত্র (Dot Map) বলে ।
প্রতীক চিহ্নের সাহায্যে কোনো নির্দিষ্ট বস্তুর অবস্হান ( যেমন – মেরু, গ্রাম , শহর ইত্যাদি কিংবা জনসংখ্যা , কৃষিজমি প্রভূতির বণ্টনগত অবস্থান ) বোঝাতে এই ধরনের মানচিত্র তৈরি করা হয় ।
*Classificationof Dot Map:-
1. Qualitative Dot Map,
2. Quantitative Dot Map.
map-skills-revision-43-728
*Selection of scale of Dots:-
1. Arbitrary Method:- এই পদ্ধতিতে এমনভাবে স্কেল নির্বাচন করা হয় যাতে বিন্দুগুলির সংখ্যা খুব কম বা বেশি না হয় । সেজন্য রাশিতথ্যের সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন মান দেখে ইচ্ছামতো স্কেল নির্বাচন করা যেতে পারে ।
2. Fixed Number Method:- এই পদ্ধতিতে রাশিতথ্যের সর্বোচ্চ মানের জন্য বিন্দুর সংখ্যা 100 ধরে স্কেল নির্বাচন করা হয় । যেমন- রাশিতথ্যে কোনো প্রশাসনিক এলাকার সর্বোচ্চ জনসংখ্যা 5000 । তাহলে একটি ডটের মান হবে 5000/100 = 50 জনসংখ্যা ।
3. Density Based Method:- এক্ষেত্রে উপাদানের সর্বাধিক ঘনত্বকে বিবেচনা করা হয় এবং মানচিত্রে সর্বাধিক ঘনত্ব বিশিষ্ট প্রশাসনিক এককের ক্ষেত্রমান নির্ণয় করে ডটের স্কেল নির্ণয় করা হয় ।
***Mission Geography***

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s