GK – History SAQ (Part-1)


প্রশ্ন:- বেদের শেষ ভাগের নাম কী ?
উত্তর:- বেদের শেষ ভাগের নাম অথর্ব।
প্রশ্ন:- বৈদিক সাহিত্যের কোন অংশকে বেদান্ত বলা হয় ?
উত্তর:-উপনিষদকে বৈদিক সাহিত্যের বেদান্ত বলা হয় ।
প্রশ্ন:- বেদ কবে রচিত হয় ?
উত্তর:-খ্রিষ্টপূর্ব ১,৫০০ – ১০০০ অব্দেরমধ্যে বেদ রচনা করা হয় বলে অনুমান করা হয়ে থাকে ।
প্রশ্ন:- বেদের কয়টি ভাগ আছে ও কী কী ?
উত্তর:- বেদের চারটি ভাগ আছে – যথা ঋক,সাম,যজু, ও অথর্ব ।
প্রশ্ন:- প্রত্যেক বেদের কয়টি অংশ ও কী কী ?
উত্তর:- প্রত্যেক বেদের চারটি অংশ , যথা:সংহিতা , ব্রাহ্মণ, আরন্যক এবং উপনিষদ বা বেদান্ত ।
প্রশ্ন:- কী ভাবে বেদ কথাটির উৎপত্তি হয় ?
উত্তর:-বিদশব্দ থেকে বেদ কথাটির উৎপত্তি হয় , বিদ শব্দের অর্থ হল জ্ঞান ।
প্রশ্ন:- গৃহপতি বা কুলপা কাকে বলা হত ?
উত্তর:- বৈদিক যুগের কোনো পরিবারেরকর্তাকেগৃহপতি বা কুলপা বলা হত ।
প্রশ্ন:- বৈদিক যুগের কয়েক জন বিদুষী নারীর নাম করো ?
উত্তর:- বৈদিক যুগের কয়েক জন বিদুষী নারীর নাম হলঅন্ডালা, ঘোষ, মমতা, লোপামুদ্রাপ্রভৃতি ।
প্রশ্ন:- আর্যদের চতুরাশ্রমের প্রথম আশ্রমের নাম কী ?
উত্তর:- আর্যদের চতুরাশ্রমের প্রথম আশ্রমের নামব্রহ্মচর্য।
প্রশ্ন:- আর্যদের চতুরাশ্রমের সর্বশেষ আশ্রমের নাম কী ?
উত্তর:- আর্যদের চতুরাশ্রমের সর্বশেষ আশ্রমের নামসন্ন্যাসাশ্রম।
প্রশ্ন:- বৈদিক যুগের প্রচলিত মুদ্রার নাম কী ?
উত্তর:- বৈদিক যুগের প্রচলিত মুদ্রার নাম ‘নিষ্ক’ ও ‘মনা’।
প্রশ্ন:- ঋকবৈদিক যুগের সমাজে কৃষক ছাড়াও অপর কয়েকটি বৃত্তিজীবি মানুষের নাম করো ?
উত্তর:- ঋকবৈদিক যুগের সমাজে কৃষক ছাড়াও অপর কয়েকটি বৃত্তিজীবি মানুষের নাম হলসূত্রধর,চর্মকার,ছুতোর,তাঁতি,কুমোর,প্রভৃতি ।
প্রশ্ন:- বৈদিক যুগে বিনিময়ের প্রধান মাধ্যম কী ছিল ?
উত্তর:- বৈদিক যুগে বিনিময়ের প্রধান মাধ্যম ছিলগোরু।
প্রশ্ন:- আর্যদের বিনিময় প্রথার প্রধান মাধ্যম কী ছিল ?
উত্তর:- আর্যদের বিনিময় প্রথার প্রধান মাধ্যম ছিলগোরু।
প্রশ্ন:- বৈদিক সভ্যতা কী ?
উত্তর:- বেদকে ভিত্তি করে যে সভ্যতা গড়ে ওঠেছে তাই বৈদিক সভ্যতা ।
প্রশ্ন:- বৈদিক সভ্যতার স্রষ্টা কারা ?
উত্তর:- বৈদিক সভ্যতার স্রষ্টা হলআর্যরা।
প্রশ্ন:- ঋকবেদে বলি শব্দটি কী অর্থে ব্যবহৃত হত ?
উত্তর:- ঋকবেদে বলি শব্দটিকর নেওয়াঅর্থে ব্যবহৃত হত ।
প্রশ্ন:- উপনিষদ কী ?
উত্তর:- উপনিষদ হল বেদের একটি অন্যতমদার্শনিক বিভাগ।
প্রশ্ন:- চতুর্বেদ ছাড়াও অপর একটি বৈদিক সাহিত্যের নাম করো ?
উত্তর:- চতুর্বেদ ছাড়াও অপর একটি বৈদিক সাহিত্যের নামবেদাঙ্গ।
প্রশ্ন:- বৈদিক যুগের দুটি জনসভার নাম করো যারা রাজশক্তিকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারত ?
উত্তর:-সভা ও সমিতি-নামে দুটি জনসভা রাজশক্তিকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারত ।
প্রশ্ন:- বৈদিক আর্যদের প্রধান ভাষা কী ছিল ?
উত্তর:- বৈদিক আর্যদের প্রধান ভাষা ছিলসংস্কৃত।
প্রশ্ন:- দশরাজার যুদ্ধ কাহিনী কোথায় লিপিবদ্ধ আছে ?
উত্তর:-দশরাজার যুদ্ধকাহিনীঋকবেদেলিপিবদ্ধ আছে।
প্রশ্ন:- বৈদিক যুগের প্রধান উপাস্য দেবতা কারা ছিলেন ?
উত্তর:- বৈদিক যুগের প্রধান উপাস্য দেবতা ছিলেনপৃথিবী, মরুৎ, রুদ্র, অগ্নি, উষা, ইন্দ্র, সূর্যপ্রভৃতি ।
প্রশ্ন:- পরবর্তী বৈদিকযুগের দু-জন বিদুষী নারীর নাম করো ?
উত্তর:- পরবর্তী বৈদিকযুগের দু-জন বিদুষী নারীর নাম হলমৈত্রেয়ী ও গার্গী।
প্রশ্ন:- পরবর্তী বৈদিকযুগে উদ্ভুত দুটি নগরের নাম করো ?
উত্তর:- পরবর্তী বৈদিকযুগে উদ্ভুত দুটি নগরের নামহস্তিনাপুর ও কৌশাম্বী।
প্রশ্ন:- প্রাচীন ভারতের কোন যুগে প্রথম গিল্ড বা ব্যবসায়ী সংঘ গড়ে ওঠে ?
উত্তর:- প্রাচীন ভারতেরপরবর্তী বৈদিক যুগেপ্রথম গিল্ড বা ব্যবসায়ী সংঘ গড়ে ওঠে ।
প্রশ্ন:- বৈদিক যুগের শেষের দিকে ধনশালী বণিক শ্রেণীকে কী বলা হত ?
উত্তর:- বৈদিক যুগের শেষের দিকে ধনশালী বণিক শ্রেণীকেশ্রেষ্ঠীবাসেটঠিবলা হত ।
প্রশ্ন:- গৃহপতি বলতে কী বোঝো ?
উত্তর:- বৈদিক পরবর্তী যুগে গ্রামাঞ্চলে গৃহপতি নামে একটিঅত্যন্ত বিত্তশালী কৃষক সম্প্রদায়েরউৎপত্তি হয়েছিল এবং এরা সাধারণতবৈশ্যশ্রেণীভুক্ত ছিল ।
প্রশ্ন:- শ্রেষ্ঠী বা সেটঠি বলতে কী বোঝো ?
উত্তর:- বৈদিক পরবর্তী যুগে বৈশ্য সম্প্রদায়ের মধ্যে অত্যন্ত বিত্তশালী বণিক শ্রেণীর উৎপত্তি হয়ে এবং এরা শ্রেষ্ঠী বা সেটঠি নামে পরিচিত ।
প্রশ্ন:- কার রাজত্বকালে দ্বিতীয় বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয় ?
উত্তর:-কালাশোকেররাজত্বকালে দ্বিতীয় বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয় ।
প্রশ্ন:- কার রাজত্বকালে তৃতীয় বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয় ?
উত্তর:-অশোকেররাজত্বকালে তৃতীয় বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয় ।
প্রশ্ন:- বৌদ্ধদের প্রধান ধর্মগ্রন্থের নাম কী ?
উত্তর:- বৌদ্ধদের প্রধান ধর্মগ্রন্থের নামত্রিপিটক( বিনয় পিটক, সুত্ত পিটক, অভিধর্ম পিটক ) ।
প্রশ্ন:- বৌদ্ধদের প্রধান ধর্মগ্রন্থত্রিপিটককোন ভাষায় লেখা ?
উত্তর:- বৌদ্ধদের প্রধান ধর্মগ্রন্থ ত্রিপিটকপালিভাষায় লেখা ।
প্রশ্ন:- জাতক কী ?
উত্তর:- বৌদ্ধ সাহিত্যের একটি বিশিষ্ট গ্রন্থ , এতে গৌতম বুদ্ধের পূর্ব জন্মের কাহিনী লিপিবদ্ধ রয়েছে ।
প্রশ্ন:- অষ্টাঙ্গিক মার্গের অপর নাম কী ?
উত্তর:- অষ্টাঙ্গিক মার্গের অপর নামমঝঝিমবামধ্যপন্থা।
প্রশ্ন:- হরপ্পা সভ্যতার সঙ্গে বৈদিক সভ্যতার প্রধান পার্থক্য কী ?
উত্তর:- হরপ্পা সভ্যতা প্রধানতনগরকেন্দ্রিকও বৈদিক সভ্যতা প্রধানতগ্রামকেন্দ্রিক।
প্রশ্ন:- প্রথম বৌদ্ধমহাসভা কোথায় আহুত হয় ?
উত্তর:- অজাতশত্রুর রাজত্বকালেরাজগৃহেপ্রথম বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয় ।
প্রশ্ন:- দ্বিতীয় বৌদ্ধমহাসভা কোথায় আহুত হয় ?
উত্তর:- কালাশোকের রাজত্বকালেবৈশালীতেদ্বিতীয় বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয় ।
প্রশ্ন:- তৃতীয় বৌদ্ধমহাসভা কোথায় আহুত হয় ?
উত্তর:- অশোকের রাজত্বকালেপাটালিপুত্রেতৃতীয় বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয় ।
প্রশ্ন:- কার রাজত্বকালে প্রথম বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয় ?
উত্তর:-অজাতশত্রুররাজত্বকালে প্রথম বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয় ।
প্রশ্ন:- বৌদ্ধধর্মে জাগতিক কামনা-বাসনার অবসানের জন্য কোন পথের সন্ধান দেওয়া হয়েছে ?
উত্তর:- বৌদ্ধধর্মে জাগতিক কামনা-বাসনার অবসানের জন্যঅষ্টাঙ্গিক মার্গেরকথা বলা হয়েছে ।
প্রশ্ন:- কৈবল্যের অর্থ কী ?
উত্তর:- কৈবল্যের অর্থ হলপরমবাবিশুদ্ধ জ্ঞান, যা লাভ করলে সুখ-দুঃখ ও পঞ্চরিপুকে জয় করা যায় ।
প্রশ্ন:- আর্যসত্য সম্বন্ধে কে বলেছিলেন ?
উত্তর:-বুদ্ধদেবআর্যসত্য সম্বন্ধে বলেছিলেন ।
প্রশ্ন:- জৈন ধর্মের মূলনীতি কী ?
উত্তর:- জৈন ধর্মের মূলনীতি হল অহিংসা ।
প্রশ্ন:- প্রথম জৈন গ্রন্থের নাম কী ?
উত্তর:- প্রথম জৈন গ্রন্থের নামকল্পসূত্র।
প্রশ্ন:- জৈনদের প্রধান ধর্মগ্রন্থের নাম কী ?
উত্তর:- জৈনদের প্রধান ধর্মগ্রন্থের নামদ্বাদশ অঙ্গ।
প্রশ্ন:- প্রথম জৈন গ্রন্থ কল্পসূত্র কে রচনা করেন ?
উত্তর:- প্রথম জৈন গ্রন্থ কল্পসূত্র রচনা করেন জৈন শ্রমন ভদ্রবাহু ।
প্রশ্ন:- তীর্থঙ্কর শব্দের অর্থ কী ?
উত্তর:- জৈনদের প্রধান ধর্মগুরুর নামতীর্থঙ্কর।
প্রশ্ন:- পার্শ্বনাথ কে ছিলেন ?
উত্তর:- পার্শ্বনাথ ছিলেন জৈনদেরতেইশতম তীর্থঙ্কর।
প্রশ্ন:- সর্বপ্রথম তীর্থঙ্করের নাম কী ?
উত্তর:- সর্বপ্রথম তীর্থঙ্করের নামঋষভদেববাআদিনাথ।
প্রশ্ন:- জৈনদের শেষ তীর্থঙ্করের নাম কী ?
উত্তর:- জৈনদের শেষ তীর্থঙ্করের নামমহাবীর( চব্বিশতম তীর্থঙ্কর ) ।
প্রশ্ন:- জৈন ধর্মের উৎপত্তির সময় কাল থেকে মহাবীর পর্যন্ত কতজন তীর্থঙ্কর ছিলেন ?
উত্তর:- জৈন ধর্মের উৎপত্তির সময় কাল থেকে মহাবীর পর্যন্ত সর্বমোটচব্বিশ জনতীর্থঙ্কর ছিলেন ।
প্রশ্ন:- পার্শ্বনাথ প্রচারিত চতুর্যামের সাথে মহাবীর কোন নতুন আদর্শ যোগ করেন ?
উত্তর:- পার্শ্বনাথ প্রচারিত চতুর্যামের সাথে মহাবীর অন্যতম আদর্শ হিসাবে সূচিতা বা ব্রহ্মচর্য আদর্শ যোগ করেন ।
প্রশ্ন:- জৈনদের দুটি প্রধান সম্প্রদায়ের নাম কী ?
উত্তর:- জৈনদের দুটি প্রধান সম্প্রদায়ের নামশ্বেতাম্বরওদিগম্বর।
প্রশ্ন:- নিগম কথার অর্থ কী ?
উত্তর:- নিগম কথার অর্থবণিকসংঘ।
প্রশ্ন:- পূর্ব ভারতের কোন শহর দীর্ঘদিন মগধের রাজধানী ছিল ?
উত্তর:- পূর্ব ভারতেররাজগৃহশহর দীর্ঘদিন মগধের রাজধানী ছিল ।
প্রশ্ন:- বুদ্ধের সমসাময়িক মগধের রাজা কে ছিলেন ?
উত্তর:- হর্ষঙ্ক বংশের রাজাবিম্বিসারবুদ্ধদেবের সমসাময়িক মগধের রাজা ছিলেন ।
প্রশ্ন:- বিম্বিসার কোন বংশের রাজা ছিলেন ?
উত্তর:- বিম্বিসার মগধেরহর্ষঙ্কবংশের রাজা ছিলেন ।
প্রশ্ন:- মগধের কোন রাজা সর্ব প্রথম দক্ষিণ ভারতের বিস্তৃত অংশ জয় করেন ?
উত্তর:- মগধের রাজাচন্দ্রগুপ্ত মৌর্যসর্ব প্রথম দক্ষিণ ভারতের বিস্তৃত অংশ জয় করেন ।
প্রশ্ন:- অশোক কবে সিংহাসনে বসেন ?
উত্তর:- অশোকখ্রিষ্টপূর্ব ২৭৩অব্দে সিংহাসনে বসেন ।
প্রশ্ন:- আলেকজান্ডার কোন দেশের রাজা ছিলেন ?
উত্তর:- আলেকজান্ডার ইউরোপ মহাদেশের গ্রিসেরম্যাসিডোনিয়াররাজা ছিলেন ।
প্রশ্ন:-মহাজন শব্দের অর্থ কী ?
উত্তর:- মহাজন শব্দের অর্থবৃহত রাজ্য।
প্রশ্ন:- ষোড়শ মহাজনপদ কাকে বলা হত ?
উত্তর:- খ্রিষ্টপূর্ব ষষ্ঠ শতাব্দিতে সমগ্র ভারতে যে ১৬টি আঞ্চলিক রাজ্যেরউদ্ভব হয় , তাদের ষোড়শ মহাজনপদ বলা হত ।
প্রশ্ন:- ষোড়শ মহাজনপদ গুলির মধ্যে দক্ষিণ ভারতের একমাত্র মহাজনপদটির নাম কী ?
উত্তর:- ষোড়শ মহাজনপদ গুলির মধ্যে দক্ষিণ ভারতের একমাত্র মহাজনপদটির নামঅস্মক।
প্রশ্ন:- ষোড়শ মহাজনপদের মধ্যে দুটি প্রজাতান্ত্রিক রাজ্যের নাম কী ?
উত্তর:- ষোড়শ মহাজনপদের মধ্যে দুটি প্রজাতান্ত্রিক রাজ্যের নাম হলবৃজিওমল্ল।
প্রশ্ন:- ষোড়শ মহাজনপদের মধ্যে কোন মহাজনপদ কালক্রমে সাম্রাজ্যে পরিনত হয় ?
উত্তর:- ষোড়শ মহাজনপদের মধ্যেমগধকালক্রমে সাম্রাজ্যে পরিনত হয় ।
প্রশ্ন:- আলেকজান্ডার কবে ভারত আক্রমণ ?
উত্তর:- আলেকজান্ডার৩২৭খ্রিষ্টপূর্বাব্দেভারত আক্রমণ ।
প্রশ্ন:- কোন বিদেশী জাতি প্রথম ভারত আক্রমণ করেন ?
উত্তর:-পারসিক জাতি( খ্রিষ্টপূর্ব ৫৫৮ অব্দে মগদরাজ বিম্বিসারের আমলে ) প্রথম ভারত আক্রমণ করেন ।
প্রশ্ন:- মগধের কোন রাজার রাজত্বকালে গ্রিক সম্রাট আলেকজান্ডার ভারত আক্রমণ করেন ?
উত্তর:- মগধের নন্দ বংশের শেষ রাজাধননন্দেররাজত্বকালে গ্রিক সম্রাট আলেকজান্ডার ভারত আক্রমণ করেন।
প্রশ্ন:- নন্দবংশের শেষ সম্রাট কে ছিলেন ?
উত্তর:- নন্দবংশের শেষ সম্রাট ছিলেনধননন্দ।
প্রশ্ন:- আলেকজান্ডারের ভারত আক্রমণের প্রাক্কালে উত্তর-পশ্চিম ভারতের দুটি রাজতন্ত্রী রাজ্যের নাম লেখো ?
উত্তর:- আলেকজান্ডারের ভারত আক্রমণের প্রাক্কালে উত্তর-পশ্চিম ভারতের রাজতন্ত্রী রাজ্যগুলির মধ্যে অন্যতম ছিলতক্ষশীলাওপুরু।
প্রশ্ন:- তক্ষশীলার কোন ভারতীয় শাসক প্রথমে আলেকজান্ডারের বশ্যতা স্বীকার করেছিলেন ?
উত্তর:- তক্ষশীলার রাজা অম্ভি ভারতীয় শাসকদের মধ্যে প্রথম আলেকজান্ডারের বশ্যতা স্বীকার করেন।
প্রশ্ন:- চন্দ্রগুপ্ত মৌর্যের রাজত্বকালে কোন গ্রিক দূত ভারতে আসেন ?
উত্তর:- চন্দ্রগুপ্ত মৌর্যের রাজত্বকালেমেগাস্থিনিসনামে এক গ্রিক দূত ভারতে আসেন ।
প্রশ্ন:- ইন্ডিকা কে রচনা করেন ?
উত্তর:- চন্দ্রগুপ্ত মৌর্যের রাজসভায় আগত গ্রিক রাজা সেলুকাসের দূতমেগাস্থিনিসইন্ডিকা রচনা করেন ।
প্রশ্ন:- অর্থশাস্ত্র কে রচনা করেন ?
উত্তর:- মৌর্যসম্রাট চন্দ্রগুপ্ত মৌর্যের মন্ত্রীকৌটিল্যবাচানক্যঅর্থশাস্ত্র কে রচনা করেন ।
প্রশ্ন:- বিন্দুসার কে ছিলেন ?
উত্তর:- বিন্দুসারমৌর্যসম্রাট চন্দ্রগুপ্ত মৌর্যের পুত্রও পরবর্তীকালে মৌর্যসম্রাট ছিলেন ।
প্রশ্ন:- বিন্দুসার কী উপাধি ধারণ করেছিলেন ?
উত্তর:- বিন্দুসারঅমিত্রাঘাতউপাধি ধারণ করেছিলেন ।
প্রশ্ন:- অমিত্রাঘাত বলতে কী বোঝায় ?
উত্তর:- অমিত্রাঘাত শব্দের অর্থশত্রু নিধন।
প্রশ্ন:- বিম্বিসার কে ছিলেন ?
উত্তর:- গৌতমবুদ্ধের সমসাময়িক বিম্বিসারমগধের হর্ষঙ্ক বংশের রাজাছিলেন ।
প্রশ্ন:- অজাতশত্রু কে ছিলেন ?
উত্তর:- অজাতশত্রুমগধের হর্ষঙ্ক বংশের রাজা ও বিন্বিসারের পুত্র ছিলেন ।
প্রশ্ন:- মৌর্যবংশের প্রতিষ্ঠাতা কে ছিলেন ?
উত্তর:- মৌর্যবংশের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেনচন্দ্রগুপ্ত মৌর্য।
প্রশ্ন:- চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য কত খ্রিস্টপূর্বাব্দে মগধের সিংহাসনে বসেন ?
উত্তর:- চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য ৩২৪ খ্রিস্ট-পূর্বাব্দে মগধের সিংহাসনে বসেন ।
প্রশ্ন:- মেগাস্থিনিস কে ছিলেন ?
উত্তর:- মেগাস্থিনিস ছিলেন মৌর্যসম্রাট চন্দ্রগুপ্ত মৌর্যের রাজসভায় উপস্থিতগ্রিক রাজদূত।
প্রশ্ন:- কোন বিদেশীলেখকের রচনা থেকে আমরা মৌর্যযুগের ইতিহাস জানতে পারি ?
উত্তর:- মৌর্যসম্রাট চন্দ্রগুপ্ত মৌর্যের রাজসভায় উপস্থিত গ্রিক রাজদূতমেগাস্থিনিসেররচনা থেকে আমরা মৌর্যযুগের ইতিহাস জানতে পারি ।
প্রশ্ন:- নন্দবংশের প্রতিষ্ঠাতা কে ?
উত্তর:-মহাপদ্ম নন্দছিলেন নন্দবংশের প্রতিষ্ঠাতা ।
প্রশ্ন:- মৌর্য বংশে অশোকের পূর্ববর্তী শাসক কে ছিলেন ?
উত্তর:-বিন্দুসারমৌর্য বংশে অশোকের পূর্ববর্তী শাসক কে ছিলেন ।
প্রশ্ন:- সম্রাট অশোকের রাজ্যাভিষেক কবে হয়েছিল ?
উত্তর:-২৬৯খ্রিস্টপূর্বাব্দেসম্রাট অশোকের রাজ্যাভিষেক হয়েছিল ।
প্রশ্ন:- সম্রাট অশোকের রজত্বকাল কত সাল পর্যন্ত ব্যাপ্ত ছিল ?
উত্তর:- সম্রাট অশোকের রজত্বকাল২৭৩ – ২৩২ খ্রিস্টপূর্বাব্দপর্যন্ত ব্যাপ্ত ছিল ।
প্রশ্ন:- ‘দেবানাং প্রিয়’ উপাধি কে ধারণ করেন ?
উত্তর:-মৌর্যসম্রাট অশোক‘দেবানাং প্রিয়’ উপাধি ধারণ করেন ।
প্রশ্ন:- ‘দেবানাং প্রিয়’ শব্দের অর্থ কী ?
উত্তর:- ‘দেবানাং প্রিয়’ শব্দের অর্থ হলদেবতাদের প্রিয়।
প্রশ্ন:- সম্রাট অশোকের কোন পুত্র ও কন্যা সিংহলে ধর্ম প্রচার করতে গিয়েছিলেন ?
উত্তর:- সম্রাট অশোকের পুত্রমহেন্দ্রও কন্যাসংঘমিত্রাসিংহলে ধর্ম প্রচার করতে গিয়েছিলেন।
প্রশ্ন:- সাতবাহন বংশের শ্রেষ্ঠ রাজা কে ?
উত্তর:- সাতবাহন বংশের শ্রেষ্ঠ রাজার নাম গৌতমীপুত্রসাতকর্ণী।
প্রশ্ন:- ভারতের কোন বিদেশি শাসনকর্তারা ক্ষত্রপ উপাধি ধারণ করেন ?
উত্তর:- উত্তর-পশ্চিম ভারতেরশকশাসনকর্তারা ক্ষত্রপ উপাধি ধারণ করেন ।
প্রশ্ন:- সাতবাহন বংশের রাজধানী কোথায় ছিল ?
উত্তর:- সাতবাহন বংশের রাজধানী ছিলপ্রতিষ্ঠান নগরে।
প্রশ্ন:- নাসিক প্রশস্তিতে কোন সাতবাহন রাজার কীর্তি বর্ণিত হয়েছে ?
উত্তর:- সাতবাহন বংশের রাজাগৌতমীপুত্র সাতকর্ণীরকীর্তি নাসিক প্রশস্তিতে বর্ণিত হয়েছে ।
প্রশ্ন:- ভারতে কুষাণ রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা কে ?
উত্তর:- ভারতে কুষাণ রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা হলেনকুজল কদফিসিস।
প্রশ্ন:-কণিষ্ক কোন অব্দের প্রচলন করেন ?
উত্তর:- কণিষ্কশকাব্দেরপ্রচলন করেন ।
প্রশ্ন:- কণিষ্ক কত সালে সিংহাসনে বসেন ?
উত্তর:-আনুমানিক ৭৮ খ্রিস্টাব্দেকণিষ্ক সিংহাসনে বসেন ।
প্রশ্ন:- কত খ্রিস্টাব্দে শকাব্দের প্রবর্তন হয় ?
উত্তর:-আনুমানিক ৭৮ খ্রিস্টাব্দেশকাব্দের প্রবর্তন হয় ।
প্রশ্ন:- কণিষ্কের রাজধানী কোথায় ছিল ?
উত্তর:- পাকিস্তানেরপেশোয়ার-এ কণিষ্কের রাজধানী ছিল ।
প্রশ্ন:- শেষ মৌর্যসম্রাট কে ছিলেন ?
উত্তর:- শেষ মৌর্যসম্রাট ছিলেনবৃহদ্রথ।
প্রশ্ন:- মৌর্য সাম্রাজ্যের পতন কবে হয় ?
উত্তর:-খ্রিষ্টপূর্ব ১৮৫ অব্দেমৌর্য সাম্রাজ্যের পতন হয় ।
প্রশ্ন:- মৌর্য সাম্রাজ্যের পতন কে ঘটান ?
উত্তর:- মৌর্য সেনাপতিপুষ্যমিত্র শুঙ্গমৌর্য সম্রাট বৃহদ্রথকে হত্যা করে মৌর্য সাম্রাজ্যের পতন ঘটান ।
প্রশ্ন:- সারনাথ স্তম্ভের শীর্ষে কী মূর্তি রয়েছে ?
উত্তর:- সারনাথ স্তম্ভের শীর্ষেসিংহমূর্তিরয়েছে ।
প্রশ্ন:- সারনাথ স্তম্ভের শীর্ষে কী চক্র আছে ?
উত্তর:- সারনাথ স্তম্ভের শীর্ষেঅশোকচক্রআছে ।
প্রশ্ন:- সাতবাহন বংশের প্রতিষ্ঠাতা কে ছিলেন ?
উত্তর:-সিমুকসাতবাহন বংশের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন ।
প্রশ্ন:- কণিষ্কের রাজধানীর নাম কী ছিল ?
উত্তর:- কণিষ্কের রাজধানীর নাম ছিলপুরুষপুর।
প্রশ্ন:- কণিষ্কের শ্রেষ্ঠ শিল্পকীর্তি কোনটি ?
উত্তর:- কণিষ্কের শ্রেষ্ঠ শিল্পকীর্তি হল পেশোয়ারে নির্মিত ৬৩৮ ফুট উচ্চতা বিশিষ্টবৌদ্ধ মঠ।
প্রশ্ন:- কোন রাজবংশের আমলে গান্ধার শিল্পের বিকাশ ঘটে ?
উত্তর:-কুষাণরাজবংশের আমলে গান্ধার শিল্পের বিকাশ ঘটে ।
প্রশ্ন:- কুষাণযুগে কোন শিল্পরীতির প্রসার ঘটে ?
উত্তর:- কুষাণযুগেগান্ধারশিল্পরীতির প্রসার ঘটে ।
প্রশ্ন:- গান্ধার শিল্পরীতি কোন কোন শিল্পরীতির সংমিশ্রণ ?
উত্তর:- গান্ধার শিল্পরীতি ছিলগ্রিক, রোমান ও ভারতীয়শিল্পরীতির সংমিশ্রণ ।
প্রশ্ন:- গৌতমীপুত্র সাতকর্ণী কোন শক রাজাকে পরাজিত করেন ?
উত্তর:- গৌতমীপুত্র সাতকর্ণী শক্তিশালী শকক্ষত্রপ নহপান-কে পরাজিত করেন ।
প্রশ্ন:- গুপ্ত বংশের প্রতিষ্ঠাতা কে ?
উত্তর:- গুপ্ত বংশের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেনশ্রীগুপ্ত ,মতান্তরেপ্রথম চন্দ্রগুপ্ত ।
প্রশ্ন:- শকারি উপাধি কে গ্রহন করেছিলেন ?
উত্তর:- গুপ্ত সম্রাটদ্বিতীয় চন্দ্রগুপ্তশকারি উপাধি গ্রহন করেছিলেন ।
প্রশ্ন:- শকারি কাকে বলা হয় ?
উত্তর:- গুপ্ত সম্রাটদ্বিতীয় চন্দ্রগুপ্তকে শকারি বলা হয় ।
প্রশ্ন:- গুপ্ত সম্রাট দ্বিতীয় চন্দ্রগুপ্ত কে কেন শকারি বলা হয় ?
উত্তর:- গুপ্ত সম্রাট দ্বিতীয় চন্দ্রগুপ্তকে শকারি বলা হয় কারণ তিনি পশ্চিম ভারত থেকেশক আধিপত্যের অবসান ঘটান।
প্রশ্ন:- কোন ভারতীয় সম্রাটকে কিংবদন্তির বিক্রমাদিত্য হিসেবে মেনে নেওয়া হয় ?
উত্তর:-গুপ্ত সম্রাট দ্বিতীয় চন্দ্রগুপ্তকে কিংবদন্তির বিক্রমাদিত্য হিসেবে মেনে নেওয়া হয় ।
প্রশ্ন:- খ্রিস্টীয় পঞ্চম শতাব্দিতে কোন বিদেশি জাতি ভারত আক্রমণ করে ?
উত্তর:- খ্রিস্টীয় পঞ্চম শতাব্দিতেহুন জাতিভারত আক্রমণ করে ।
প্রশ্ন:- ফা-হিয়েন কার রাজত্বকালে ভারতে আসেন ?
উত্তর:- ফা-হিয়েনগুপ্ত সম্রাট দ্বিতীয় চন্দ্রগুপ্তেররাজত্বকালে ভারতে আসেন ।
প্রশ্ন:- ফা-হিয়েন কে ছিলেন ?
উত্তর:- ফা-হিয়েনচীনদেশীয় পরিব্রাজকছিলেন ।
প্রশ্ন:- ফা-হিয়েন-এর ভারত সংক্রান্ত গ্রন্থটির নাম কী ?
উত্তর:- ফা-হিয়েন-এর ভারত সংক্রান্ত গ্রন্থটির নামফো-কুও-কি।
প্রশ্ন:- গুপ্ত বংশের শেষ গুপ্ত সম্রাটের নাম কী ?
উত্তর:- গুপ্ত বংশের শেষ গুপ্ত সম্রাটের নামদ্বিতীয় জীবিত গুপ্ত ।
প্রশ্ন:- কোন গুপ্ত সম্রাট পরাক্রমাঙ্ক উপাধি গ্রহন করেন ?
উত্তর:- গুপ্ত সম্রাটসমুদ্রগুপ্তপরাক্রমাঙ্ক উপাধি গ্রহন করেন ।
প্রশ্ন:- কাকে ভারতের নেপোলিয়ান বলা হয় ?
উত্তর:- গুপ্ত সম্রাটসমুদ্রগুপ্তকে ভারতের নেপোলিয়ান বলা হয় ।
প্রশ্ন:- এলাহাবাদ প্রশস্তি কে রচনা করেন ?
উত্তর:- সমুদ্রগুপ্তের সভাকবিহরিষেণএলাহাবাদ প্রশস্তি রচনা করেন ।
প্রশ্ন:- এলাহাবাদ প্রশস্তিতে কিসের বর্ণনা আছে ?
উত্তর:- এলাহাবাদ প্রশস্তিতেসমুদ্রগুপ্তের রাজ্যজয়েরবর্ণনা আছে ।
প্রশ্ন:- কোন গুপ্ত সম্রাট কবিরাজ নামে খ্যাত ?
উত্তর:- গুপ্ত সম্রাটসমুদ্রগুপ্তকবিরাজ নামে খ্যাত ।
প্রশ্ন:- কোন গুপ্ত সম্রাট হুন আক্রমণ প্রতিরোধে সমর্থ হন ?
উত্তর:- গুপ্ত সম্রাটস্কন্দগুপ্ত হুন আক্রমণ প্রতিরোধে সমর্থ হন ।
প্রশ্ন:- ভারতের রক্ষাকারী রাজা কাকে বলা হয় ?
উত্তর:- গুপ্ত সম্রাটস্কন্দগুপ্তকেভারতের রক্ষাকারী রাজা বলা হয় ।
প্রশ্ন:- গুপ্ত সম্রাট স্কন্দগুপ্তকে কেন ভারতের রক্ষাকারী রাজা বলা হয় ?
উত্তর:- গুপ্ত সম্রাটস্কন্দগুপ্তকেভারতের রক্ষাকারী রাজা বলা হয় কারণ তিনি হুন আক্রমণ প্রতিরোধে সমর্থ হন ।
প্রশ্ন:- বিশাখদত্ত রচিত নাটক দেবীচন্দ্রগুপ্তম থেকে কী জানা যায় ?
উত্তর:- বিশাখদত্ত রচিত নাটক দেবীচন্দ্রগুপ্তম থেকে সমুদ্রগুপ্ত ও দ্বিতীয় চন্দ্রগুপ্তের মধ্যবর্তীসম্রাট রামগুপ্তপ্রসঙ্গে জানা যায়
প্রশ্ন:- বুদ্ধচরিতের রচয়িতা কে ?
উত্তর:- বুদ্ধচরিতের রচয়িতা হলঅশ্বঘোষ।
প্রশ্ন:- বিশাখদত্ত রচিত নাটকটির নাম কী ?
উত্তর:- বিশাখদত্ত রচিত নাটকটির নামদেবীচন্দ্রগুপ্তম।
প্রশ্ন:- হর্ষবর্ধন দাক্ষিনাত্যের কোন রাজার কাছে পরাজিত হয়েছিলেন ?
উত্তর:- হর্ষবর্ধন দাক্ষিনাত্যেরচালুক্যরাজ দ্বিতীয় পুলাকেশীরকাছে পরাজিত হয়েছিলেন ।
প্রশ্ন:- গৌড় সার্বভৌম রাজ্যটির প্রতিষ্ঠাতা কে ?
উত্তর:- গৌড় সার্বভৌম রাজ্যটির প্রতিষ্ঠাতা ছিলেনগৌড়রাজ শশাংক।
প্রশ্ন:- বাংলার প্রথম সার্বভৌম নরপতি কে ছিলেন ?
উত্তর:-গৌড়রাজ শশাংকবাংলার প্রথম সার্বভৌম নরপতি কে ছিলেন ।
প্রশ্ন:- থানেশ্বর রাজ্য কে স্থাপন করেন ?
উত্তর:-প্রভাকরবর্ধনথানেশ্বর রাজ্য স্থাপন করেন ।
প্রশ্ন:- হর্ষবর্ধনের রাজধানী কোথায় ছিল ?
উত্তর:- হর্ষবর্ধনের রাজধানী ছিলকনৌজ।
প্রশ্ন:- মিহিরকুল কে ছিলেন ?
উত্তর:- মিহিরকুল ছিলেন একজনহুন নেতা।
প্রশ্ন:- হিউয়েন-সাঙ কে ছিলেন ?
উত্তর:- হিউয়েন-সাঙ ছিলেনচিনদেশীয় পরিব্রাজকযিনি হর্ষবর্ধনের রাজত্বকালে ভারতে আসেন ।
প্রশ্ন:- প্রাচীন ভারতে উত্তরাপথের সর্বাধিনায়ক বা সকল উত্তরপথনাথ কাকে বলা হত ?
উত্তর:-হর্ষবর্ধনকে প্রাচীন ভারতে উত্তরাপথের সর্বাধিনায়ক বা সকল উত্তরপথনাথ বলা হত ।
প্রশ্ন:- হিউয়েন-সাঙ রচিত বিবরণীর নাম কী ?
উত্তর:- হিউয়েন-সাঙ রচিত বিবরণীর নামসি-ইউ-কি।
প্রশ্ন:- প্রয়াগের মেলা কি নামে পরিচিত ছিল ?
উত্তর:- প্রয়াগের মেলামহামোক্ষ ক্ষেএনামে পরিচিত ছিল ।
প্রশ্ন:- হর্ষবর্ধনের রাজত্বকালে কোন চিনদেশীয় পরিব্রাজক ভারতে আসেন ?
উত্তর:- হর্ষবর্ধনের রাজত্বকালেহিউয়েন-সাঙভারতে আসেন ।
প্রশ্ন:- হর্ষচরিত কে রচনা করেন ?
উত্তর:-বাণভট্টহর্ষচরিত রচনা করেন ।
প্রশ্ন:- ত্রি-শক্তি সংগ্রাম কোন কোন রাজ্যের মধ্যে হয়েছিল ?
উত্তর:- ত্রি-শক্তি সংগ্রামপাল, প্রতিহার,ও রাষ্ট্রকুটবংশের মধ্যে হয়েছিল ।
প্রশ্ন:- মাৎস্যন্যায়ের যুগ বলতে কি বোঝায় ?
উত্তর:- বাংলার শশাঙ্কের পরবর্তী যুগেরঅরাজকতাপূর্ণ রাজনৈতিক পরিস্থিতিকে মাৎস্যন্যায়ের যুগ বলে
প্রশ্ন:- বাংলার প্রথম নির্বাচিত নরপতি কে ?
উত্তর:-গোপালদেববাংলার প্রথম নির্বাচিত নরপতি ।
প্রশ্ন:- সেন বংশের শেষ রাজা কে ছিলেন ?
উত্তর:- সেন বংশের শেষ রাজা ছিলেনলক্ষ্মণ সেনমতান্তরে কেশব সেন ।
প্রশ্ন:- তুঙ্গভদ্রা নদী কোথায় অবস্থিত ?
উত্তর:- দক্ষিণ ভারতেরঅন্ধ্রপ্রদেশ অঞ্চলেতুঙ্গভদ্রা নদী অবস্থিত ।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s