“Geography and We” – March, 2017


-:Geography and We:-


*Land of Midnight Sun:- উত্তর মেরুতে একটানা ৬ মাস দিন ( ২১ মার্চ থেকে ২৩ শে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত) এর সময় নরওয়ের উত্তর সীমান্তের হ্যামারফেস্ট বন্দর থেকে গভীর রাত্রেও সূর্য দেখা যায়। এই জন্য নরওয়ের হ্যামারফেস্ট বন্দর এবং তার আশেপাশের অঞ্চল সমুহ কে “নিশীথ সূর্যের দেশ” বলে।। চিত্রে, রাতের আকাশে সূর্য এবং মেরুপ্রভাও দেখা যাচ্ছে।
*********************


*উড়ুক্কু মাছ (Flying Fish):- ক্রান্তীয় অঞ্চলের সমুদ্রে এই ধরনের উড়ুক্কু মাছ দেখা যায়। এই ধরনের মাছ সমুদ্র উপরিতল বা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৬ মিটার উঁচু পর্যন্ত উঠতে পারে এবং ৫ সেকেন্ড থেকে প্রায় ৪০ সেকেন্ড অবধি বাতাসে নিজেকে ভাসিয়ে প্রায় ৪০০ মিটার দূরত্ব অতিক্রম করে। এরা তাদের প্রসারিত পাখনা এবং লেজ এর সাহায্যে উড়তে পারে। তাই এদের কে উড়ুক্কু মাছ বলা হয়।
*********************


*Mumbai High:- মুম্বাই থেকে ১৭৬ কিমি দূরে খাম্বাত উপসাগরে অবস্থিত এই তৈলক্ষেত্রটি ভারতের বৃহত্তম তৈলক্ষেত্র। ১৯৬৫ সালে ভারতীয় এবং রাশিয়ান যৌথ তৈল অনুসন্ধানকারীদের সহায়তায় সমুদ্রগর্ভে এই খনি টি আবিষ্কৃত হয়। এরপর ১৯৭৪ সালে O.N.G.C এটিকে চালু করে। মুম্বাই হাই এর এই অঞ্চল টি মিয়োসিন যুগের চুনাপাথর এর এক ভান্ডার। মুম্বাই হাই টি উত্তর-উত্তর পশ্চিম দিক থেকে দক্ষিন -দক্ষিন পশ্চিম দিকে ৬৫ কিমি দীর্ঘ এবং ২৩ কিমি বিস্তৃত সমুদ্রে নিমজ্জিত দুটি উর্ধ্বভংগ এবং একটি চ্যুতি যুক্ত বাহু দ্বারা গঠিত। মুম্বাই হাই এর দুটি ব্লক আছে। যথা- মুম্বাই হাই উত্তর এবং মুম্বাই হাই দক্ষিন।
এখানে ১২৫ টি তৈল কূপ খনন করা হয়েছে। প্রধান খনি গুলি হল হীরা, পান্না, রত্না, নীলম ইত্যাদি। এখানে প্রতিদিন প্রায় ৩,৪৭১৯৭ ব্যারেল খনিজ তেল উত্তোলিত হয়। মনে করা হয় এখানে ৩৩০ মিলিয়ন টন তেল এবং ৩৭০০০ মিলিয়ন কিউবিক মিটার প্রাকৃতিক গ্যাস সঞ্চিত আছে।
*********************


*El Tatio Geyser Field:- প্রায় ৩০ বর্গকিমি বিস্তৃত এই গিজার অঞ্চলটি সমুদ্রতল থেকে ৪৩২০ মিটার উচ্চে উত্তর চিলির আন্দিজ পার্বত্য অঞ্চলে অবস্থিত। এটি দক্ষিন গোলার্ধের বৃহত্তম এবং সারা পৃথিবীর তৃতীয় বৃহত্তম গিজার অঞ্চল। এখানে ৮৫ টি ফিউমারোল(যে সব আগ্নেয়গিরি দিয়ে প্রচুর জলীয় বাষ্প ও অন্যান্য গ্যাস ঘন ধোঁয়ার আকারে বেরিয়ে আসে তাকে ফিউমারোল বলে।) এবং সালফাটারা(যে সব আগ্নেয়গিরি দিয়ে শুধু মাত্র সালফার বা গন্ধক মিশ্রিত গ্যাস নির্গত হয় তাকে সালফাটারা বলে) , ৪০ টি সক্রিয় গিজার( উষ্ণ প্রস্রবনের জল যখন কয়েক মিনিট বা কয়েক ঘন্টা অন্তর পরপর স্তম্ভের আকারে বাইরে বেরিয়ে আসে তখন তাকে গিজার বলে।), ৬২ টি উষ্ণ প্রস্রবন এবং ৫ টি কর্দম আগ্নেয় গিরি রয়েছে।এখানে প্রতিবছর কয়েক লাখ পর্যটক আসেন। তাই চিলি সরকার এর প্রস্তাবিত জিওথার্মাল শক্তি প্রজেক্টটি আপাতত বন্ধ রয়েছে।
*********************

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s