WHAT IS GEOGRAPHY

ভূগোল কী ? ভূগোল আমরা কেন পড়ি ? ভূগোল শিক্ষার উদ্দেশ্য বা লক্ষ্য কী ? আসুন জেনে নেওয়া যাক ।


ভূগোল এক বিশালায়তন জ্ঞান ভান্ডার l মানুষের প্রতিটি ক্রিয়াকলাপের সাথে ভূগোল অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত l একজন চাষী থেকে একজন পর্যটক, ব্যবসায়ী, রাজনীতিবিদ, পরিসংখ্যানবিদ সকল প্রকার ব্যক্তির ভূগোল বিষয়ে জ্ঞান রাখা প্রয়োজন l কারণ পৃথিবী ও মানব তথা জীবজগতের অন্তঃসম্পর্কের আলোচনাই হল ভূগোল l ভূগোল একাধারে মানুষের জীবনযাত্রা-সংস্কৃতি,­ আর্থ-সামাজিক জীবন প্রণালী, জলবায়ু ও পরিবেশের সম্পর্ক এবং তার ভিত্তিতে মানবীয় কার্যাবলীর বিভিণ্ন দিক নিয়ে আলোচনা করে l অর্থাত্ ভূগোল সংকীর্ণ থেকে বিস্তারিত ভাবে প্রার্থিব সকল প্রকার উপাদানের জ্ঞান লাভের অন্যতম প্রধান মাধ্যম l

ভূগোল শিক্ষার প্রধান লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য কে নিম্নলিখিত ভাবে বর্ণনা করা যায় –

1. মানষিক চেতনার উন্মেষ :- প্রতিটি শিক্ষার মূল লক্ষ্য হল মানসিক চেতনার উন্মেষ ঘটানো l এই চেতনা থেকে একজন মানুষ তার জীবনযাত্রা ও তার মানোন্নয়ন সঠিক ভাবে করতে পারে l ভূগোল যেহেতু প্রাকৃতিক, আর্থ-সামাজিক, রাজনৈতিক প্রভৃতি বিভিণ্ন ধরনের পরিবেশ ও মনুষ্য জীবনে তার প্রভাব সমন্ধে আলোচনা করে ,তাই শিক্ষার্থীর মানসিক চেতনার বিকাশে ভূগোল এক অত্যাবশ্যকীয় বিষয় l

2. পৃথিবী ও তার বৈশিষ্ট সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন :- এই বিশাল পৃথিবীর দুটি ভৌগলিক স্থানের মধ্যে প্রচুর বিভেদতা রয়েছে, আবার অবস্থান ভেদে জলবায়ু, প্রাকৃতিক পরিবেশ, মানুষের অর্থনৈতিক কার্যাবলীর প্রকৃতি ও মানবীয় চারিত্রিক বৈশিষ্ট সদা পরিবর্তনশীল l পৃথিবীর এরুপ সামগ্রিক ও স্থানিক বৈশিষ্ট ও বিভেদতা সম্পর্কে জ্ঞান লাভের জন্য ভূগোল পাঠ অত্যাবশকীয় l

3. যুক্তিবাদী, অন্বেষণী ও অনুসন্ধানী মনোভাবের বিকাশ :- ভূগোল বিজ্ঞানের ‘আঁতুড়ঘর ‘ l যেকোন রকম প্রার্থিব সংঘটন অন্যান্য বিজ্ঞানের মতোই ভূগোলে অনুসন্ধানী দৃষ্টিভঙ্গিতে যুক্তির মাধ্যমে গ্রহণ করা হয় l আবার ঐ সংঘটনকে প্রার্থিব বিভিণ্ন শক্তির প্রভাব দ্বারা আলোচনা করে উপস্থাপনা করা হয় l ফলে ভূগোল পৃথিবীর বিভিণ্ন ঘটনা সম্পর্কে শিক্ষার্থীর মনে কৌতুহল জাগিয়ে তুলতে সক্ষম l এই কৌতুহল অন্বেষণী, অনুসন্ধানী, পর্যবেক্ষণ মূলক এবং যুক্তিবাদী মনোভাবের বিকাশে সাহায্য করে l

4. প্রাকৃতিক অবস্থা সম্পর্কে জ্ঞানলাভ :- ভূগোল কোন স্থানের প্রাকৃতিক অবস্থা, জলবায়ু ও ভূপ্রকৃতির সম্পর্ক, জলবায়ুর ভিত্তিতে মানুষের দৈহিক গঠণ, সাংস্কৃতির বিকাশ,রুচি-আহার-জীবি­কার প্রাথমিক বৈশিষ্ট বসতির গঠণ প্রভৃতি নানা বিষয় সম্পর্কে আলোচনা করে থাকে l অর্থাত্ পৃথিবীর বিভিণ্ন স্থানের প্রকৃতি ও মানবীয় সমাজ তথা মানুষ সম্পর্কে জ্ঞান লাভের অদ্বিতীয় মাধ্যম হল ভূগোল l

5. প্রাকৃতিক সম্পদ সম্পর্কে ধারণার বিকাশ :- জ্ঞান আজকের শিক্ষার্থী আগামী দিনের দ্বায়িত্বশীল নাগরিক l একজন দ্বায়িত্বশীল নাগরিকের প্রধান দ্বায়িত্ব হল দেশের সামগ্রীক উন্নয়ন সাধন আর এই উন্নয়নের প্রধান ভিত্তি হল সম্পদ উত্তোলন l সম্পদ উত্তোলনের জন্য সম্পদ ও প্রকৃতির অন্তঃসম্পর্ক সমন্ধে ধারণা থাকা জরুরী l প্রাকৃতিক সম্পদের সম্ভাব্য সঞ্চয় ক্ষেত্র, সম্পদের প্রকৃতি ও গুরুত্ব, অর্থনৈতিক উন্নয়নে সম্পদের ভূমিকা সম্পর্কে ধারণা প্রদানে ভূগোল শিক্ষার্থীদের কাছে অনবদ্য বিষয় l

6. অতীত-বর্তমান-ভবিষ্যৎ­ সম্পর্কে ধারণা লাভ :- পৃথিবীর উত্পত্তি,জীবজগতের বিকাশ, মানবীয় সমাজের ক্রম প্রতিপাদন, অর্থনৈতিক-সামাজিক-সা­ংস্কৃতিক বিকাশের ধারা প্রভৃতি নানা বিষয়ের অতীত-বর্তমান ও ভবিষ্যতের রূপরেখা ও সম্পর্ক সমন্ধে জ্ঞান লাভের জন্য ভূগোল পাঠ আবশ্যক l

7. পরিবেশ সম্পর্কে জ্ঞান লাভ :- পৃথিবীর বর্তমান প্রাকৃতিক পরিবেশ ও তার ভবিষ্যতে পরিবর্তনশীলতা,পরিবেশ­ের উন্নয়ন ও অবনমন, ভূমিরুপের বিকাশ,পরিবেশ দূষণ ও দূষণ রোধের উপায়,দূষণ ও জীবজগতের পরিবর্তিত রুপ, বিশ্ব উষ্ণায়ন প্রভৃতি সম্পর্কে জ্ঞান লাভ ভূগোল শিক্ষার্থী তথা যেকোন শিক্ষার্থী অন্যতম আগ্রহের বিষয় যা ভূগোল শিক্ষার মাধম্যে সম্পূর্ণ হয় l

8. সুষম ব্যক্তিত্বের বিকাশ :- যেকোন শিক্ষার অন্যতম মূল উদ্দেশ্য হল সুষম ব্যক্তিত্বের বিকাশ l যা শিক্ষার্থীর পারিপার্শিক প্রাকৃতিক ও আর্থ-সামাজিক অবস্থা,পরিবেশ সচেতনতা, জীবনধারণের মানোন্নয়ন, জ্ঞানার্জনের কৌতুহল, বিশ্বের আপেক্ষিক পরিকাঠামো ও জনজীবনে তার প্রভাব সম্পর্কে ধারণার ভিত্তিতে গঠিত হয় l যা ভূগোলের এক অন্যতম প্রতিপাদ্য বিষয় l

9. সামাজিকতার বিকাশ :- ভূগোল শিক্ষা দেশপ্রেম জাগরণ ; প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের প্রতি আকর্ষণ ; সহযোগিতা,সমবেদনা ও বিশ্ব ভাতৃত্ব বোধের মনোভাব গঠণ ; দেশ ও মানবজাতির সাপেক্ষে সভ্যতা ও সংস্কৃতির মূল্যায়ন উপলব্ধি প্রভৃতির মাধ্যমে শিক্ষার্থীর অন্তঃকরনে সামাজিকতার বীজ বপনে সাহায্য করে থাকে l


10. ব্যবহারিক দিকের উন্নয়ন :- মানুষ প্রতিনিয়ত ছুটে চলেছে উন্নয়নের পিছনে l এই উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন ব্যবহারিক দক্ষতা যা ভূগোল শিক্ষার মাধ্যমে প্রাপ্ত হয় l ভূমির ব্যবহার, শিল্পের বিকাশ, কৃষিব্যবস্থার উন্নয়ন,পরিবহন, যোগাযোগ ও বাণিজ্য ব্যবস্থার আধুনিকীকরণের সাথে এরুপ উন্নয়ন ওতপ্রোতভাবে জড়িত l আবার উন্নয়নের এইসব উপাদানগুলোর ব্যবহারিক কৌশল সমন্ধে সম্যক ধারণা প্রদান করে ভূগোল শিক্ষা l অর্থাত্ ব্যবহারিক দিকের উন্নয়নে ভূগোল শিক্ষা আবশ্যকীয় l

অবশেষে বলা যায় ভূগোল এমন একটি বিষয় যা একজন শিক্ষার্থীকে সম্পূর্ণ ভাবে জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্র সমন্ধে জ্ঞান আহরণে অণুপ্রেরিত করে থাকে l ভূগোল শুধু মাটি, পাথর,শিলা প্রভৃতির বর্ণনা নয় ইহা সমগ্র ব্রহ্মান্ডের একঝলকের দর্পণ l যা, না জানলে জ্ঞানের পরিধি সংকীর্ণ থেকে যায় l আসুন আমরা ভূগোলকে তথা বিশ্ব প্রকৃতির রহস্য কে জানতে ভূগোলের প্রতি আলোকপাত করি l






•Edited by Gopal Mondal (Writter, MGI GROUP)
•Designed by Sourav Sarkar (Director, MGI GROUP)
©Mission Geography India
Advertisements